স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: আনুমানিক ষাট বছরেরও বেশি সময় ধরে বাড়িতে ছিল চিতা বাঘের চামড়া। বন দফতরের হাতে সেই চামড়া তুলে দিলেন জলপাইগুড়ির এক বাসিন্দা। জলপাইগুড়ি টেম্পল স্ট্রিটের বাসিন্দা কেবল অপারেটর অনিমেষ দেবের কাছে চামড়াটি দির্ঘদিন ধরে ছিল।

অনিমেষবাবুর দাবি, তাঁর বাবা ছিলেন বনব্যবসায়ী। বিভিন্ন সময়ই জঙ্গলে যেতেন। তাঁর হাত ধরেই বাড়িতে আসে এই চিতা বাঘের চামড়া। অনিমেষবাবুর জন্মের আগেই এই চামড়া এনেছিলেন অনিমেষবাবুর বাবা। এরপর থেকে ঘরেই পড়েছিল এটি।

সম্প্রতি পুরানো বাড়ি সংস্কার করতে গিয়ে ফের খুঁজে পান চিতার চামড়াটি। তখনই সিদ্ধান্ত নেন চামড়াটিকে বনদফতরের হাতে তুলে দিয়ে ভারমুক্ত হবেন তিনি। এরপরেই তিনি যোগাযোগ করেন বনদফতরের সঙ্গে।

এদিন তাঁর বাড়িতে হাজির হন ওয়াইল্ড লাইফ ওয়ারডেন সীমা চৌধুরী। তাঁর ও বনদফতরের প্রতিনিধিদের হাতে চিতার চামড়াটি তুলে দেন তিনি। উপস্থিত ছিলেন তাঁর পরিবারের সদস্যরা। চিতার চামড়া বনদফতরের হাতে তুলে দিয়ে অনিমেষবাবু সকলের কাছেই আবেদন জানান, যাদের কাছে এখনও এই ধরনের বন্যপ্রাণীর দেহাংশ আছে সেগুলি তারাও যেন তুলে দেন বনদফতরের হাতে। অনিমেষবাবুর কাজের প্রশংসা করেছেন ওয়াইল্ড লাইফ ওয়ার্ডএন সীমা চৌধুরী।