নয়াদিল্লি: রামায়ন, মহাভারত নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করলেন সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। তাঁর মতে রামায়ন-মহাভারত শুধুই হিংসায় ভরা। হিন্দুদেরও অহিংস বলতে রাজি নন তিনি।

একটি সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে ইয়েচুরি বলেন, ‘হিংসা আর যুদ্ধেই ভরা রামায়ণ, মহাভারত। প্রচারকেরা মহাকাব্যের কথা বর্ণনা করেন অথচ দাবি করেন যে হিন্দুরা হিংসাত্মক নয়। স্বাভাবিকভাবেই তাঁর এই মন্তব্যের তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে গেরুয়া শিবিরে।

বৃহস্পতিবার মধ্যপ্রদেশের ভোপালে ওই সভায় তিনি বলেন, ‘রামায়ণ আর মহাভারতের মত ধর্মগ্রন্থে হিংসার ঘটনার কোটি কোটি উদাহরণ আছে।” উনি বলেন, ‘ আরএসএস প্রচারকেরা একদিকে এই গ্রন্থ গুলোর উদাহরণ দেয়, আরেকদিকে তাঁরাই বলে, হিন্দুরা হিংস্র হতে পারেনা। এই কথার মধ্যে কি লজিক আছে যে, এক বিশেষ ধর্মের মানুষেরাই শুধু হিংসা ছড়ায়, আর হিন্দুরা শান্তি!”

সীতারাম ইয়েচুরি আরও বলেন, আরএসএস প্রাইভেট আর্মি বানাচ্ছে। কিন্তু মহাজোট নরেন্দ্র মোদীকে প্রধানমন্ত্রীর আসন থেকে ক্ষমতাচ্যুত করবে। সীতারাম ইয়েচুরি ভোপালের এই সভায় ভোপাল লোকসভা আসনে কংগ্রেসের প্রার্থী দিগ্বিজয় সিং ও উপস্থিত ছিলেন। উনি বলেন, এটা সাধারণ লোকসভা নির্বাচন না, এটা সংবিধান বাঁচানোর লড়াই।

দিগ্বিজয় সিং অভিযোগ করে বলেন, ‘বিজেপি সংবিধানকে খেলনা বানিয়ে রেখেছে। বিজেপি সংবিধানে একদমই বিশ্বাস করেনা। এই লড়াই মানুষের সাথে না, এই লড়াই বিজেপির বিচারধারার বিরুদ্ধে লড়াই।” ভোপাল লোকসভা আসনের কংগ্রেস প্রার্থী দিগ্বিজয় সিং হিন্দু বিরোধী নেতা বলেই পরিচিত। উনি এর আগেও হিন্দুদের সন্ত্রাসবাদী বলে আখ্যা দিয়েছিলেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.