মুম্বই: অবশেষে সিবিআই এর হাতে পৌঁছেছে সুশান্ত সিং রাজপুত এর তদন্ত। বুধবার সুপ্রিমকোর্ট কে এমনই জানিয়ে দিয়েছে কেন্দ্র। সুশান্তের মৃত্যুর পরে তদন্তভার মুম্বই পুলিশের হাতেই। কিন্তু সুবিচারের দাবিতে নেট দুনিয়া সরব হন সুশান্তের অনুরাগী সহ বহু নেটিজেনরা।

সিবিআই তদন্তের দাবি তে ফেসবুকে তৈরি হয় বেশ কয়েকটি গ্রুপ। অবশেষে সেই সমস্ত দাবিতেই শিলমোহর বসল। আর এর জন্য কেন্দ্র তথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ধন্যবাদ জানালেন সুশান্তের দিদি শ্বেতা সিং কীর্তি।

সিবিআই এর হাতে তদন্ত ভার, এই খবর প্রকাশ্যে আসার পরেই সুশান্তের দিদি টুইট করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ধন্যবাদ ও শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। সুশান্তের প্রাক্তন বান্ধবী তথা অভিনেত্রী অঙ্কিতা লোখান্ডেও একটি টুইট করে লেখেন, “যেই মুহুর্তের জন্য আমরা অপেক্ষা করেছিলাম অবশেষে সেটির আগমন হয়েছে।”

নেটিজেনরাও কেন্দ্রের এই পদক্ষেপকে কুর্নিশ জানিয়ে নেটদুনিয়ায় প্রশংসা করেছেন। অনেকেই মনে করছেন এবারে নিশ্চয়ই সুশান্ত এর পরিবার সুবিচার পাবেন।

মঙ্গলবার কেন্দ্রের কাছে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার আবেদন করেছিলেন, এই তদন্ত সিবিআই এর হাতে তুলে দেওয়া হোক। সেই আবেদনে র পরেই সুশান্ত মামলাটি তুলে দেওয়া সিবিআই এর হাতে। সুপ্রিম কোর্টকে এমনই জানালো কেন্দ্র।

তুষার মেহতা জানিয়েছেন বিহার সরকার আবেদন করার পর তা কেন্দ্র গ্রহণ করে এবং এই তদন্তটি যাতে সিবিআই এর দ্বারাই হয় সেই ব্যবস্থা নেয়। উচ্চপদস্থ আইনজীবী মুকুল রোহাতগি জানিয়েছেন এই সিদ্ধান্তকে তাঁরা স্বাগত জানাচ্ছেন।

সুশান্তের পরিবার সিবিআই তদন্ত চায় এমন জানার পরেই বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার কেন্দ্রের কাছে এই আবেদন করেছিলেন। সুশান্ত এর মৃত্যুর পরই প্রথমদিকে তাঁর পরিবারের কেউ সেভাবে সিবিআই তদন্তের জন্য সরব হননি।

কিন্তু প্রয়াত অভিনেতার অনুরাগী সহ নেটিজেনরা প্রথম থেকেই সিবিআই তদন্ত চান বলে নেট দুনিয়ায় সরব ছিলেন। অবশেষে কিছুদিন আগে পটনার রাজিব নগর থানায় সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেন সুশান্তের বাবা কে কে সিং।

সূত্রের মারফত জানা যায় তাঁর মুম্বই পুলিশের উপর আস্থা আর নেই। সুশান্তের দিদি শ্বেতা জানিয়েছেন মুম্বই পুলিশ কী তদন্ত করছেন তাঁর জন্য অপেক্ষা করছিলেন তারা। অবশেষে তাঁরাও সিবিআই তদন্তের জন্য সবুজ সংকেত দেন।

মুম্বই পুলিশ যেভাবে তদন্ত করছে তাতে তাঁরা সন্তুষ্ট নয় বলেও জানা গিয়েছে। তাছাড়াও গত ফেব্রুয়ারি মাসে নাকি কে কে সিং মুম্বাই পুলিশকে আগে থেকেই সাবধান করেছিলেন যে, সুশান্তের জীবনে কোনো বিপদ আসতে চলেছে। এবং তার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন করেছিলেন তিনি।

কিন্তু কোনো রকম ব্যবস্থাই নেওয়া হয়নি। আর তাই এই পরিণতি। সেজন্য মুম্বই পুলিশের দিকে অভিযোগ উঠছে সরাসরি। আর তাই বাধ্য হয়ে বিহার পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছিলেন সুশান্তের বাবা। সঙ্গে সিবিআই তদন্ত চান এমনও জানিয়েছিলেন। অবশেষে সেই দাবিতেই শিলমোহর বসলো।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা