কলকাতা- দুর্গাপুজোর সময়ে কোন কোন দিকে অতিরিক্ত সতর্কতা বজায় রাখতে হবে সেসব নিয়ে বৃহস্পতিবার আলোচনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। করোনা সংক্রমণের কথা মাথায় রেখে এবার পুজোয় জারি হয়েছে বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞা।

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন বাংলায় এবার পুজোয় হবে না কোনও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এই নিষেধাজ্ঞা জারি হতেই কপালে ভাঁজ পড়েছে সঙ্গীত জগতের। গায়িকা লোপামুদ্রা মিত্র একটি সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের মাধ্যমে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বন্ধ না করার জন্য আবেদন করেছেন।

লোপামুদ্রা পোস্টে লিখেছেন, “মাননীয়া দিদি, গান বাজনা , নাচ, নাটক, যাত্রা। একে অপরকে না ছুঁয়েও এ কাজ করতে পারবো আমরা । দূরে দূরে থেকেও গান শোনা যায়, নাচ নাটক যাত্রা দেখা যায়। নিয়মবিধি তৈরী করে যদি অনুমতি দেন, অনেক ছেলেমেয়ে বেঁচে যাবে, তাদের পরিবার বেঁচে যাবে।”

গায়িকা মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন, “বিশ্বাস করুন, নিজের জন্য বলছি না। বাদ্যযন্ত্রী, আলো, সাউন্ড, সেট, ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি ইত্যাদি ইত্যাদি…….. মনের কথা ছেড়ে দিলাম। মনের তাগিদ, মনের খিদে, তাকে তুলে রাখলাম আপাতত। সকলের হয়ে বিনীত অনুরোধ, আপনার কাছে। কড়া নিয়ম তৈরী করে দিন।

আমরা মানবো । শুধু অনুষ্ঠান করার অনুমতি দিন। সকলের মন ভেঙে যাচ্ছে। আমরা জানি, আপনি বুঝবেন আমাদের কথা, আমাদের ব্যাথা। কোন কোন বন্ধু, দাদা ,ভাই ,বোন আমার সাথে সহমত, জানি না । কাল থেকে ভেবে মনে হল, এটাই আমি করতে পারি।”

ফেসবুকে সঙ্গীত শিল্পীর দেওয়া খোলা চিঠি
ফেসবুকে সঙ্গীত শিল্পীর দেওয়া খোলা চিঠি

এই পোস্ট শেয়ার করেছেন শিল্পী মনোময় ভট্টাচার্যও। তিনিও শেয়ার করে লিখেছেন, “আমাদের বিনীত অনুরোধ”। এই পোস্ট শেয়ার করেছেন গায়িকা ইমন চক্রবর্তীও। প্রতিবছর বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসবের সূচনা থেকে সমাপ্তি সবটাই হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে। প্রত্যেকে যে সময়ে ছুটি কাটান, সেই সময়ে শিল্পীরাই গান, নাচ, নাটকে মানুষকে মাতিয়ে রাখেন।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ছাড়া বাঙালির দুর্গা পুজা এক কথায় অসম্পূর্ণও বলা চলে। কিন্তু এবছর করোনা সংক্রমণের জন্য তৈরি হয়েছে নিউ নর্মাল পরিস্থিতি। শিল্পীদের আবেদনে এবার মুখ্যমন্ত্রী কী পদক্ষেপ করেন সেটাই এখন দেখার।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।