কুয়ালা লামপুর: ওমেনস সিঙ্গলসের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে সাইনা নেহওয়াল ও পিভি সিন্ধু বিদায় নেওয়ায় মালয়েশিয়া মাস্টার্সে অভিযান শেষ হল ভারতীয়দের। মেনস সিঙ্গলসের পাঁচ জন ভারতীয় প্রতিনিধি আগেই ছিটকে গিয়েছেন টুর্নামেন্ট থেকে।

শেষ আটের লড়াইয়ে সাইনা ও সিন্ধু পরাজিত হন পরিচিত প্রতিদ্বন্দ্বীদের কাছে। একতরফা লড়াইয়ে লন্ডন অলিম্পিকের ব্রোঞ্জ জয়ী সাইনাকে কার্যত উড়িয়ে দেন ক্যারোলিনা মারিন। অন্যদিকে বিশ্বের দু’নম্বর তারকা তথা টুর্নামেন্টের শীর্ষবাছাই তাই জু য়িং-এর কাছে হার মানেন রিও অলিম্পিকের রুপো জয়ী তথা বিশ্বচ্যাম্পিয়ন সিন্ধু। পুসারলা পালটা লড়াই চালালেও সাইনা আত্মসমর্পণ করেন অলিম্পিক চ্যাম্পিয়নের কাছে।

মাত্র আধ ঘন্টা স্থায়ী হয় কোর্টে নেহওয়ালের লড়াই। এই ম্যাচের আগে মারিনের সঙ্গে মুখোমুখি সাক্ষাতে সাইনা দাঁড়িয়েছিলেন ৬-৬ সমতায়। কাজেই মালয়েশিয়া মাস্টার্সে উত্তেজক লড়াই হবে বলে আশা করা গিয়েছিল। বাস্তবে দেখা যায় ঠিক উলট ছবি। আগাগোড়া আধিপত্য বজায় রেখে ভারতীয় তারকাকে বিধ্বস্ত করেন স্প্যানিশ মারিন। যদিও কোর্টে সাইনার একের পরে এক ভুলকেও তাঁর হারের জন্য দায়ী করা যায়। সবমিলিয়ে নেহওয়াল হার মানেন ৮-২১, ৭-২১ স্ট্রেট গেমে।

মুখোমুখি সাক্ষাতে সিন্ধু-তাই জু পরিসংখ্যান একতরফাভাবে ঝুঁকে রয়েছে তাইপের শাটলারের দিকে। সেই আধিপত্যটা আরেকটু বাড়িয়ে নিলেন তাই জু। মালয়েশিয়া মাস্টার্সে জয়ের সুবাদে তিনি এগিয়ে রইলেন ১২-৫ ব্যবধানে। কুয়ালা লামপুরে সিন্ধু হার মানেন ১৬-২১, ১৬-২১ গেমে। মুখোমুখি সাক্ষাতে এই নিয়ে পর পর দু’টি ম্যাচে তাই জু’র কাছে হারলেন সিন্ধু। গত বছর অক্টোবরে ফ্রেঞ্চ ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে পুসারলাকে পরাজিত করেছিলেন তাই জু।

ছেলেদের সিঙ্গলসে পারুপাল্লি কাশ্যপ, কিদাম্বি শ্রীকান্ত ও বি সাই প্রণীত প্রথম রাউন্ডেই বিদায় নিয়েছিলেন। পরে শীর্ষবাছাই তারকা’র কাছে হার মানেন এইচএস প্রণয়। ছিটকে যান সমীর বর্মাও।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ