বর্ধমান : রাজ্যে জুড়ে অশান্তির পরিপ্রেক্ষিতে দিলীপ ঘোষ মন্তব্য করেন লুঙ্গি পরা লোকজনই অশান্তি ছড়াচ্ছে। বুধবার এর পরিপেক্ষিতে সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী বলেন, ‘ওর পূর্ব পশ্চিম জ্ঞান নাই। সাংসদ হয়েছেন, অথচ এত নীচে নেমে রাখাল-বাগালের মতো কথা বলা ওনার সাজে না।’

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে রাজ্যের হিংসাত্মক পরিস্থিতির জন্য একটি বিশেষ সম্প্রদায়কে দায়ী করেছেন দিলীপ ঘোষ। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কাঠগড়ায় তুলে বিজেপির রাজ্য সভাপতির অভিযোগ, রাজ্যে লুঙ্গি সন্ত্রাস চলছে। সব জেনেও কিছুই করছেন না মুখ্যমন্ত্রী। এবার দিলীপ ঘোষের মন্তব্যের পাল্টা দিলেন গ্রন্থাগার মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী।

সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী বলেন , ‘বাজারে টুপি কিনতে পাওয়া যায়। টুপি পরা থাকলেই কে কোন সম্প্রদায় বোঝা মুশকিল। একজন সৎ মুসলিম কখনও হিংসার কাজে মদত দিতে পারে না। বিজেপিকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার জন্য কিছু লোক এই কাজ করছে।’

রাজ্যে এখন যে পরিস্থিতি চলছে তাতে মাথা ঠান্ডা রেখে ও শান্তিপূর্ণ ভাবে আন্দোলনের ডাক দেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা জমিয়েতে উলামা হিন্দ সংগঠনের সভাপতি সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে তারা সুপ্রিম কোর্টের দারস্থ হয়েছেন ও একটি আপিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার মেদিনীপুরে এই সংগঠনের পক্ষে ডাকা একটি মিটিংয়ে এসে তিনি বলেন যে নাগরিকত্ব আইনের কথা বলা হচ্ছে তা তারা মানবেন না ও মানতে নারাজ। এই আইনের প্রতিবাদে আগামী ২২ তারিখে কলকাতায় রানী রাসমণি রোডে একটি সভার ডাক দেওয়া হয়েছে বলেও জানান সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী।একইভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যে ভাবে পোশাক নিয়ে মন্তব্য করেছেন তার সমালোচনা করে সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী বলেন, আমরা কেউ প্রধানমন্ত্রীর দয়াতে বাস করি না। মুসলিম বিদ্বেষে তার মন পূর্ণ হয়ে আছে।”