মুম্বই: ক্রমশ রহস্য দানা বাঁধছে সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু তদন্ত ঘিরে। বুধবার এই তদন্তের দায়িত্ব নিয়েছে সিবিআই। ইতিমধ্যেই সিবিআই রিয়া ও তার গোটা পরিবারের বিরুদ্ধে এফআইআর করেছে। সম্প্রতি সুশান্তের একটি ব্যক্তিগত ডায়েরি হাতে এসেছে সংবাদমাধ্যম টাইমস নাও এর। কিন্তু অদ্ভুতভাবে দেখা যাচ্ছে ডায়েরির নির্দিষ্ট কয়েকটি পাতা ছেঁড়া রয়েছে।

এই তথ্য সামনে আসতেই নতুন করে রহস্য দানা বেঁধেছে। কে ছিঁড়ে ফেলল এই পাতাগুলি প্রশ্ন উঠছে। সুশান্তের সঙ্গে তাঁর ফ্ল্যাটে থাকতেন সিদ্ধার্থ পিঠানি। সিদ্ধার্থ জানিয়েছেন যে মুম্বই পুলিশ সুশান্তের প্রায় কুড়িটি ডায়েরি বাজেয়াপ্ত করে নিয়ে গিয়েছিল। তিনি নিজে কোনো ছেঁড়া পাতা দেখতে পাননি বলে জানিয়েছেন।

কিন্তু অন্যদিকে সুশান্ত সিং রাজপুতের বাবা কে কে সিং-এর আইনজীবী বিকাশ সিং জানিয়েছেন যে, সুশান্তের মৃত্যুর দিন তাঁর বাড়িতে কয়েকটি ছেঁড়াপাতা দেখেছিলেন তাঁর দিদি। এই বিষয়ে সিদ্ধার্থকে জিজ্ঞাসা করা হয়। তিনি জানিয়েছেন তিনি কোনো ছেঁড়াপাতা পড়ে থাকতে দেখেননি। কিন্তু ঘরের ড্রয়ারে কিছু চিরকুট দেখতে পেয়েছিলেন। সিদ্ধার্থ বলছেন, “আমি সেগুলি পুলিশকে দেখিয়েছিলাম। পুলিশ সেগুলির ছবিও তুলে নিয়ে গিয়েছিল।”

তবে এর কিছুক্ষণের মধ্যেই আবার অন্যরকম কথা বলেছেন সিদ্ধার্ত পিঠানি। তিনি বলেছেন যে, সুশান্ত নাকি ডায়েরিতে লিখতেন এবং লেখা অপছন্দ হলে নিজেই সেটা ছিঁড়ে ফেলে দিতেন। সিদ্ধার্থের কথায়, “আমি নিশ্চিত এই ছেঁড়া পাতাগুলো কোনো না কোনো বইয়ের মধ্যে পাওয়া যাবে।”

সিদ্ধার্থ জানান, মুম্বই পুলিশ সুশান্ত পুরনো ফোনগুলো এবং আইপ্যাড সঙ্গে করে নিয়ে গিয়েছে। জানা যাচ্ছে সিদ্ধার্থ এতদিন ধরে যা যা বলেছেন সেই সমস্ত বয়ানে একাধিক অসঙ্গতি রয়েছে। সিদ্ধার্থ পিঠানি সুশান্তের সঙ্গে ডুপ্লেক্স ফ্ল্যাট শেয়ার করে থাকতেন। ১৪ জুন সুশান্তের দেহ প্রথম দেখেন সিদ্ধার্ত।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও