স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বৃহস্পতিবারই জ্যোতি বসু রিসার্চ ফাউন্ডেশন তৈরি করার জন্য রাজ্য সরকারের থেকে জমি পেয়েছে সিপিএম। তবে, বৃহস্পতিবারই রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন, শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় রিসার্চ ফাউন্ডেশন – এর জন্য রাজ্য সরকারের কাছে জমি চাওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গিয়েছে, দিল্লি’র শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় রিসার্চ ফাউন্ডেশন-এর তরফ থেকে ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে রাজারহাটে জমি চেয়ে কয়েকদিন আগেই চিঠি দেওয়া হয়েছে।

পরিস্থিতি এমন যে, রাজারহাট এলাকায় বহু টালবাহানার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের থেকে সিপিএম জমি পেতে সক্ষম হয়েছে। কয়েকদিন আগে থেকে বিজেপির দিন গণনায় শুরু হয়েছে – কবে রাজারহাটে শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় রিসার্চ ফাউন্ডেশন-এর জমি রাজ্য সরকারের হাত থেকে বেরোবে। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এদিনই পরিষ্কার করে দিয়েছেন যে পার্টির তরফ থেকে রাজ্য সরকারের কাছে এই জমি চাওয়া হবে না বা হয়নি।

রাজধানীতে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি রিসার্চ ফাউন্ডেশন দীর্ঘদিন ধরেই গবেষণা এবং প্রশিক্ষণমূলক কাজ করছে। ফাউন্ডেশন-এর ডিরেক্টর অনির্বান গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জমি চেয়ে চিঠি লেখা হয়েছে। শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় বাঙালির গৌরব, পশ্চিমবঙ্গের শ্রষ্ঠা। শিক্ষা, শিল্প, রাজনীতিতে তিনি অনন্য ব্যক্তিত্ব। ভারতের রাজনীতিতে তাঁর অবদান তুলনাহীন। এই সব কথা মাথায় রেখেই শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি রিসার্চ ফাউন্ডেশন কলকাতার রাজারহাটে গড়ে তুলতে চাই। এটি বিশ্বমানের একটি গবেষণা কেন্দ্র হবে। সামাজিক, সাংস্কৃতিক এবং রাজনৈতিক আলোচনা এবং গবেষণা চলবে। চলবে প্রশিক্ষণও।”

অনির্বানবাবুর আরও বক্তব্য, “মুখ্যমন্ত্রী বাংলার গৌরব রক্ষায় এগিয়ে আসেন। আশা করছি, বাঙালিকে যিনি গর্বিত করেছেন, সেই ব্যক্তিত্বর নামে এই রিসার্চ ফাউন্ডেশনটি তৈরিতে উদ্যোগ নেওয়া।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ