কলকাতা: প্রয়াত বর্ষীয়ান সিপিএম নেতা শ্যামল চক্রবর্তী৷ বৃহস্পতিবার বেলা ১.৪৫ মিনিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

কোভিড আক্রান্ত হয়ে বাইপাসের ধারে একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি৷ ১ অগস্ট থেকে ভেন্টিলেশনে ছিলেন প্রবীণ নেতা৷ ৩০ জুলাই থেকে পিয়ারলেস হাসপাতালে ভর্তি হন৷

শ্রমিক সংগঠন সিটুর রাজ্য সভাপতি ছিলেন শ্যামল চক্রবর্তী৷ সামলেছেন রাজ্যের পরিবহণ দফতরের দায়িত্ব৷ রাজ্যসভার সাংসদও ছিলেন তিনি৷

বুধবার নিজের ফেসবুক ওয়ালে মুখ্যমন্ত্রীর সৌজন্যের কথা জানিয়ে তাঁকে ধন্যবাদ দিয়েছেন শ্যামল চক্রবর্তীর কন্যা, অভিনেত্রী উষসী৷ জানিয়েছিলেন বাবার শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিয়েছেন মুখ‍্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
এর আগে কলকাতা পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মাও খোঁজ নেন বর্ষীয়ান নেতার। সবরকম সাহায‍্যের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

জানা গিয়েছে,জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে উল্টোডাঙার একটি নার্সিংহোমে ভরতি হয়েছিলেন শ্যামল চক্রবর্তী। এছাড়াও তাঁর প্রস্রাব অনিয়মিত হচ্ছিল। সেখানে তাঁর নিউমোনিয়া ধরা পড়ে। এর পর তাঁকে করোনা পরীক্ষা করানো হয়। সেই রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। ওই নার্সিংহোম থেকে বাইপাসের একটি নার্সিংহোমে তাঁকে স্থানান্তরিত করা হয়৷

রবিবার রাতে তাঁর অবস্থার কিছুটা অবনতি হয়। ভেন্টিলেটর সাপোর্ট দিতে হয় বর্ষীয়ান নেতাকে। যদিও সোমবার তাঁর শারীরিক অবস্থার সামান্য উন্নতি হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তাঁকে এখন আংশিক ভেন্টিলেটর সাপোর্টে রাখা হয়েছে।

গত কয়েকদিন ধরে তাঁর শারীরিক অবস্থার আপডেট জানাচ্ছিলেন তাঁর মেয়ে অভিনেত্রী উষসী চক্রবর্তী।

তিনদিন আগেও উষসী ফেসবুকে পোস্ট করে জানিয়েছিলেন যে তাঁর বাবার অবস্থা স্থিতিশীল। ফোনেও কথাও হয়েছিল মেয়ের সঙ্গে। তবে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে আসছিল। তাই ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল তাঁকে। বাবা করোনা পজিটিভ হওয়ায় উষসীও সচেতন নাগরিকের মতো হোম কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন। করোনা পরীক্ষা করিয়েছিলেন। সেই রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় নিশ্চিত হয়ে ফের যোগ দিয়েছেন শুটিংয়ে।

কিছুদিন আগেই করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন আর এক সিপিএম নেতা ফুয়াদ হালিম। তবে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন তিনি। আক্রান্ত হয়েছিলেন বাম নেতা অশোক ভট্টাচার্যও।

তাঁর জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও পেটখারাপের সমস্যা রয়েছে। বাইপাসের ধারে একটি হাসপাতালে ভর্তি করার পর করোনা পরীক্ষা করা হয় তাঁর। সেই রিপোর্টই পজিটিভ আসে।

অপরদিকে বর্ষীয়ান সিপিআইএম নেতা শ‍্যামল চক্রবর্তীও অসুস্থ হয়ে ভরতি হাসপাতালে। শুরুতে তাঁর করোনা ধরা না পড়লেও শনিবার তাঁর করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। রবিবার রাত থেকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে শ্যামল চক্রবর্তীকে।

সিপিএমের তরফে জানানো হয়েছে, এদিন দুপুরের আগে ও পরে পরপর দুবার তাঁর হার্ট অ্যাটাক হয়। প্রথমবার কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনার পর আর একটা অ্যাটাক সব শেষ হয়ে যায়।

যেহেতু উনি কোভিড পজিটিভ ছিলেন সেই কারণে ওঁর শেষ যাত্রার কর্মসূচি পরে জানানো হবে। আমাদের সমস্ত পার্টি অফিসে পার্টি পতাকা অর্ধনমিত থাকবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।