একটা সময় গানটাই ছিল জীবন, নাচের ক্লাস মিস হত না একদিনও। একলা ঘরে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে সেলিব্রিটিদের নকল করা হয়েছে কতবার!

১৮ পেরনোর লড়াইটা চাক্ষুষ করা হয়নি তখনও। তাই কিশোর বেলায় ছিল বুক ভরা স্বপ্ন, আর আজ পাঁজর জুড়ে দীর্ঘশ্বাস। বাসে কিংবা ট্রেনে যেতে যেতে ফেসবুক ওয়ালে যখন চোখে পড়ে, মঞ্চ মাতাচ্ছে সময়বসী ছেলেটা বা মেয়েটা, ভিডিও গুলো ছড়িয়ে পড়ছে ফেসবুকের ‘দেওয়ালে’, তখন গলার কাছে দলা পাকিয়ে আসে ‘আমিও তো পারতাম…!’ ততক্ষণে অফিসের স্টপেজ হাজির। ওসব স্বপ্ন-টপ্ন হজম করে ডেডলাইনের দৌড়।

চোরাস্রোতের মত হয়ত চর্চাটা বেঁচে আছে কারও কারও। ছুটির দিনে ধুলো ঝেড়ে আদুরে কোলে তানপুরাটা উঠে আসে কখনও। পড়ন্ত বিকেলে ঘুঙুরের শব্দ, থোড়-বড়ি-খাড়া স্রোতের মাঝে তৈরি করে একটা আলাদা ‘এক্সিসট্যান্স’। শুধু নেশা অথবা শখ নয়, রোবটের মত জীবনে তখন একটু সুর বা একটা তাল বড্ড আপন হয়ে ওঠে। আর এই ফ্রি ডেটার যুগে আপনার সেই ট্যালেন্ট আপনাকে সত্যিই করে তুলতে পারে স্টার। রিয়্যালিটি শো-এর অডিশনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইন দেওয়ার দরকার নেই। অফিসের কিউবে বসেই ‘ভাইরাল’ হয়ে যেতে পারেন আপনি। শুধু একটা ভিডিও ‘সেন্ড’ করতে হবে মেলবক্সে। আপনার কাছে পৌঁছে যাবে CFP Films-এর টিম।

মাসখানেক আগে kolkata24x7CFP Films সেই স্বপ্ন দেখানোর কাজটাই শুরু করে যৌথভাবে। আর তাতে যে সাড়া পাওয়া যায়, তা অভাবনীয়। ‘সুরে ঘুঙুরে’-র পরপর পাঁচটা এপিসোডে আত্মপ্রকাশ করেছেন পাঁচ ভিন্ন ঘরানার শিল্পীরা। কর্পোরেট সংস্থায় কর্মরত কিংবা কলকাতা পুলিশেরঅফিসার, প্রত্যেকেই এখন কাজের বাইরেও একটা পরিচয় বহন করছেন। তাঁদের ট্যালেন্ট সামনে আনার জন্য একটা প্লাটফর্ম তৈরি করে দিয়েছে kolkata24x7CFP Films. সহকর্মীরা আজ যখন বলেন, ‘আরে তুমি তো সেলেব্রিটি!’, সেই কিশোর বেলার আবেগগুলো যেন আরও একবার ধাক্কা মারে বুকের ভিতর।

কর্পোরেট সংস্থায়া চাকুরিরতা নেহা ওডিশি ডান্সার। আমাদের প্রথম এপিসোড ছিল নেহার গল্প নিয়েই। হাজার হাজার ‘ভিউ’, শেয়ার আর কমেন্টের বন্যায় আপ্লুত নেহা। স্বামী কিংবা শাশুড়ির অগাধ সাপোর্ট থাকলেও নিজের দক্ষতা সবার কাছে পৌঁছে দেওয়ার সময় ছিল না তাঁর। আজ কমেন্ট বক্স যখন ভরে উঠছে ‘Excellent’ বা ‘অপূর্ব’… এমন কমেন্টে, তখন গর্বিত নেহার গোটা পরিবার। নেহা বলেন, ‘আরও এগিয়ে যাক kolkata24x7CFP Films-এর এই প্রয়াস।’

২১ বছর ধরে গান শিখছেন পানিহাটীর সৌমিতা। শাশুড়িই ফেসবুক দেখে বলেছিলেন, ‘ভিডিওটা পাঠিয়ে দাও’। আর আজ কলকাতা থেকে নিউ ইয়র্ক kolkata24x7-এর লক্ষ লক্ষ ‘ফলোয়ার’-এর কাছে পৌঁছে গিয়েছেন কলকাতার এই ওয়েব ডেভেলপার। অনেকেই সৌমিতাকে আশীর্বাদ করে বলেছেন, ‘আরও এগিয়ে যাও..’। সৌমিতাও ধন্যবাদ জানিয়েছেন দর্শকদের। কমেন্ট বক্সেই লিখেছেন, ‘সকলকে ধন্যবাদ…এভাবেই সকলকে পাশে পেতে চাই সবসময়।’ আত্মীয়রা ফোনের পর ফোন করছেন সৌমিতাকে। আর মাঝে মধ্যেই সহকর্মী বা প্রতিবেশীরা সৌমিতার গান শোনার আবদার ধরছে।

এখন অনেকেই জানেন কলকাতা পুলিশে একজন ‘বাঁশিওয়ালা’ আছেন। ‘সুরে ঘুঙুরে’র সৌজন্যে লক্ষ লক্ষ মানুষ চিনে ফেলেছেন সেই মনোরঞ্জন মুর্মুকে। তাঁর এক সহকর্মী তাঁর হয়ে মেল করে পাঠিয়েছিলেন ভিডিও। তারপর রূপকথা! বাঁশিওয়ালা পুলিশকে ভালোবেসেছেন আমাদের বহুদর্শক। ভরতনাট্যম ডান্সার রিয়ার নাচও আজ ফেসবুকের ওয়ালে ওয়ালে ঘুরছে। পরিচিত-অপরিচিত বহু মানুষ আশীর্বাদ করছেন রিয়াকে। তাঁর নাচের স্কুলটা কোথায়, জানতে চেয়ে ফোনও এসেছে kolkata24x7-এর দফতরে।

সুতরাং, ‘পারতাম!’ বলে আর হাহুতাশ করার দরকার নেই। এখন আপনিও বলুন ‘আমি পেরেছি!’ পাশে আছি আমরা। আমরাই আপনাকে পৌঁছে দেব বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। শুধু দেশে নয়, আরব মরুভূমিতে কিংবা টেমসের তীরে বসেও কেউ দেখবে আপনার ভিডিও।

হতে পারে নাচ, গান, সেতার, ভায়োলিন কিংবা যে কোনও বাদ্যযন্ত্র। আপনার ট্যালেন্টের সেই ভিডিও ক্লিপিং মেল করুন shurayoghunguray@kolkata24x7.com – এই ঠিকানায়। আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করব আমরাই।