প্রতীতি ঘোষ, ব্যারাকপুর: প্রশাসন হাতে চুড়ি পরে বসে আছে, বুধবার উত্তর ২৪ পরগনার হালিশহরে আক্রান্ত বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে দেখা করে সাংবাদিকদের একথাই বললেন বীজপুরের বিজেপি বিধায়ক শুভ্রাংশু রায় ।
ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল ও বিজেপি কর্মীদের মধ্যে রাজনৈতিক সংঘর্ষ অব্যাহত । বীজপুর বিধানসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত হালিশহর পুরসভা এলাকায় গত তিন দিনে অন্তত ১০ জন বিজেপি কর্মীকে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্বের । ভাঙচুর করা হয়েছে হালিশহর পুরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের বিজেপি কাউন্সিলর সুনীতা বিশ্বাসের বাড়ি । শুধু তাই নয়, এলাকার বিজেপি কর্মীদের অভিযোগ গত কয়েক দিনে কাঁচরাপাড়া, হালিশহর এলাকায় বিজেপির অন্তত ৫/৬ টি দলীয় কার্যালয় ভাঙচুর করেছে শাসকদল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা ।
বুধবার আক্রান্ত বিজেপি কর্মীদের দেখতে তাদের বাড়িতে যান স্থানীয় বিধায়ক শুভ্রাংশু রায় । তিনি হালিশহর পুরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের বিজেপি কাউন্সিলর সুনীতা বিশ্বাসের বাড়িতে ও যান । কথা বলেন আক্রান্ত কর্মীদের সঙ্গে ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে ।
শুভ্রাংশু রায় এদিন সাংবাদিকদের বলেন, “তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের হাতে বিজেপি কর্মীদের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা এই এলাকায় নতুন কিছু নয় । এখানে গড়ে দিনে ১৫ জন বিজেপি কর্মীকে মারধর করছে শাসক দলের দুষ্কৃতীরা । পুলিশ বা প্রশাসন বলে কিছু নেই । রাজ্যে গনতন্ত্র হারিয়ে গেছে । প্রশাসন হাতে চুড়ি পরে বসে আছে । ওদের কোন ভূমিকা নেই ।”
এদিন বিধায়ক শুভ্রাংশু রায়ের সঙ্গে আক্রান্তদের বাড়িতে যান হালিশহরের স্থানীয় বিজেপি নেতা রাজা দত্ত । এদিকে শুভ্রাংশু রায়ের অভিযোগ সম্পর্কে হালিশহরের ১২ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল নেতা কাঞ্চন দাস বলেন, “বিজেপির মণ্ডল সভাপতি গঠন কে কেন্দ্র করে বিজেপির নিজেদের মধ্যে গোষ্ঠী কোন্দল রয়েছে । সেই কারনে এই এলাকায় ওরাই ওদের কর্মীদের মারছে ।”

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা