কলকাতা: করোনা সংকটের লকডাউন চলায় ‌গত কয়েক মাস ধরে গরিব মানুষের জন্য সস্তায় খাবার দিতে ব্যবস্থা করা হয়েছিল শ্রমজীবী কান্টিন। এবার উদ্যোগ নেওয়া হলো শ্রমজীবী বাজার। বুধবার থেকে যাদবপুরে শুরু হইল শ্রমজীবী বাজার।

সরাসরি চাষীদের থেকে ন্যায্য দামে কিনে ক্রেতাদের কাছে সস্তায় আনাজ তরিতরকারি পৌঁছে দেবার উদ্যোগ। বুধবার বিধায়ক সুজন চক্রবর্তীর উপস্থিতিতে এই বাজারের উদ্বোধন হলো।

এক্ষেত্রে সরাসরি বিক্রয়ের জায়গায় এনে বিজ্ঞানসম্মত উপায় সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণ করা হচ্ছে। মাঝে দালালরা না থাকায় ক্রেতাদের ন্যায্যমূল্যে তার বিক্রয় করা হচ্ছে। আপাতত এক জায়গা থেকে বিক্রির ব্যবস্থার করা হলেও আরো বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে গাড়িতে সবজি নিয়ে এলাকায় ঘুরবে অর্থাৎ ভ্রাম্যমাণ বাজারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

উদ্যোক্তাদের লক্ষ্য, এই বাজার আর ক্যান্টিনকে এক সূত্রে বাধা, যাতে ক্যান্টিনের কাচামালের সরবরাহও এই বাজার থেকে আসতে পারে।, যাতে আরও বিভিন্ন রকম সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর মেনু একই দামে দিতে পারা যায়। আপাতত যাদবপুর অঞ্চলে হলেও পরবর্তীকালে আরও অন্যান্য জায়গায় ক্যান্টিনের পাশাপাশি বাজার গড়ে তোলা হবে। এর ফলে একদিকে জিনিসপত্রের দামের দিক থেকে সস্তা হবে অন্যদিকে গোটা এই প্রক্রিয়ার জন্য কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

উদ্যোক্তাদের পরিকল্পনা রয়েছে স্টোরেজ আর প্রসেসিং টেকনলজিতে‌ কিছু লগ্নি করার, যাতে শুধু সব্জি বা আনাজের পাশাপাশি মাছ মাংসকেও এই বাজারের আওতায় আনতে পারা যায়।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।