নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: বহুদিনের জল্পনার অবসান ঘটিয়ে স্বাধীনতা দিবসের ঠিক একদিন আগে ১৪ অগস্ট বুধবার নয়া ইনিংস শুরু করলেন শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়৷ দিল্লিতে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দিলেন বিজেপিতে৷ বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের উপস্থিতিতে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখালেন তাঁরা৷ আর এই সমগ্র ছবি হাসিমুখে টেলিভিশনের পর্দায় দেখলেন রত্না চট্টোপাধ্যায়৷ আর এই দুই ছবিই বুধবার সন্ধ্যায় বারবার উঠে এল টেলিভিশনে৷

শোভন-রত্না-বৈশাখী, রাজনীতির আঙিনায় বারবারই উঠে এসেছে এই তিন নাম৷ দাম্পত্য কলহ থেকে অন্যরকম সমীকরণ, আবার কখনও নিছকই রাজনৈতিক কারণে, বিভিন্ন সময়েই মুখ খুলতে দেখা গিয়েছে তাঁদের৷ আর বুধবার শোভন-বৈশাখীর বিজেপিতে যোগদান এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়ের যোগদান পরবর্তী বক্তব্য নিয়ে রীতিমতো কটাক্ষ করলেন রত্না চট্টোপাধ্যায়৷

 

এদিন বিজেপিতে যোগ দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের দুর্নীতি নিয়ে, সন্ত্রাস নিয়ে মুখ খুললেন শোভন চট্টোপাধ্যায়৷ পরিষ্কার জানান, পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল কোনও বিরোধী দলকে মনোনয়ন জমা দিতে দেয়নি৷ তখনই তিনি এই বিষয়ে সরব হয়েছিলেন বলে জানান শোভন৷ কিন্তু দলের শীর্ষ নেতৃত্ব তাঁর কথায় কোনও গুরুত্ব দেয়নি বলে তাঁর অভিযোগ৷

এদিন রাজনৈতিক কৌশলী প্রশান্ত কিশোরের ভূমিকা নিয়েও কটাক্ষ করেন শোভন চট্টোপাধ্যায়৷ তিনি বলেন দল ঠিক রাস্তায় চললে, বাইরে থেকে লোক ভাড়া করে আনতে হত না৷ দলের লোকেদের কথায় গুরুত্ব না দিয়ে বাইরের লোকের কথায় চলছে দল৷

শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বক্তব্যের পরপ্রেক্ষিতে রত্না চট্টোপাধ্যায় বলেন, দুবছর ধরে তিনি তাঁর সন্তানদের নিয়ে একা থাকছেন৷ শোভন চট্টোপাধ্যায় তাঁদের সঙ্গে থাকেন না৷ তিনি যা করেছেন, তারপর নীতির কথা বলেন কী করে, আর এখানেই বিষয়টি তাঁর হাস্যকর মনে হয়েছে৷ পাশাপাশি তিনি এও বলেন, ‘বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় কতটা তাদের লাভ হল, তা সময়ই বলবে৷’