শ্রীনগর: প্রায় ছ মাস হয়ে গিয়েছে তাঁরা বন্দী। বিরোধীরা বারবার চাপ দেওয়ার সত্বেও কোন লাভ হয়নি। মাসের-পর-মাস বন্দি হয়ে রয়েছেন ওমর আব্দুল্লা, ফারুক আব্দুল্লা, মেহবুবা মুফতির মত কাশ্মীরি নেতা-নেত্রীরা। অবশেষে প্রকাশ্যে এল একটি ছবি।

ছবিটির সত্যতা যাচাই করা সম্ভব না হলেও. ছবিটি রীতিমতো আলোড়ন তৈরি করেছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও ছবিটি ট্যুইট করেছেন। লিখেছেন, ‘আমি এই ছবিতে ওমর আব্দুল্লাকে চিনতেই পারিনি। ছবিটি দেখর আমি মর্মাহত। গণতান্ত্রিক দেশে কবে এসব শেষ হবে?’

কাশ্মীরের রাজনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পরিবারের সন্তান ওমর আবদুল্লা ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী ও। ভারতের সুদর্শন রাজনীতিবিদদের মধ্যে তিনি অন্যতম। কিন্তু শনিবার সোশ্যাল মিডিয়ায় যে ছবিটি প্রকাশ এসেছে তা সত্যিই চমকে দেওয়ার মতো।

শুকনো মুখে একরাশ দাড়ি আর তার মধ্যে আসছেন তিনি। ছ’মাস বন্দি থাকার পর এমনই অবস্থা হয়েছে ওমার আব্দুল্লার। কাশ্মীরের নতুন করে টুজি নেট পরিষেবা চালু হওয়ার পরই ছবিটি প্রকাশ এসেছে বহু সাংবাদিক ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন যদিও ছবির উৎস কোথা থেকে তা জানা যায়নি।

গত বছরের আগস্ট মাসে কাশ্মীর থেকে 370 ধারা তুলে নেওয়ার পর থেকেই বন্দি রয়েছেন এই নেতানেত্রীরা। বিরোধীদের চাপ দেওয়া সত্ত্বেও তাদের মুক্তি দেওয়া হয়নি। এবার আমেরিকার তরফ থেকে ভারতকে বার্তা দেওয়া হয়েছে যাতে তাদের দ্রুত মুক্তি দেওয়া হয়।

শনিবার ওমর আব্দুল্লাহ ছবিটি প্রকাশ্যে আসার পর অনেকেই সেটি শেয়ার করেছেন কেউ লিখেছেন, এত কিছুর মধ্যেও তাঁর মুখে হাসি দেখে আশা জাগছে।

এদিকে, সম্প্রতি নয়াদিল্লি সফরে এসেছিলেন মার্কিন দূত এলিস ওয়েলস। এখানে এসে তিনি কাশ্মীরের নেতাদের দ্রুত মুক্তি দেওয়ার কথা বলেন। এদিকে এতদিন বাদে ইন্টারনেট ফিরে আসার বিষয়টিতে আমেরিকা খুশি বলে জানিয়েছেন তিনি। সরকারের কাছে আর্জি জানিয়েছেন যাতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত দের কাশ্মীরে নিয়মিত যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। কোন মামলা ছাড়াই কাশ্মীরি নেতাদের মুক্তি দিতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

চলতি মাসের শুরুতে ১৫ টি দেশের কূটনীতিকদের কাশ্মীরের যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয় গত বছরের আগস্ট মাসে স্পেশাল স্ট্যাটাস তুলে নেওয়ার পর এই প্রথমবার বিদেশি কূটনীতিকদের কাশ্মীরে যেতে দেওয়া হলো।