আহমেদাবাদ: মানসিক রোগী এক মহিলার পেট থেকে বেরোল পেরেক চুড়ি ও মঙ্গলসূত্র৷ সব মিলিয়ে ওজন দেড় কেজি৷ অপারেশন করে বের করা হয় সেইসব জিনিস৷ মঙ্গলবার আহমেদাবাদের ওই হাসপাতালের এক প্রবীণ চিকিৎসক এই খবরটি জানিয়েছেন৷ ঘটনা মহারাষ্ট্রের সিরডির৷

ওই চিকিৎসক জানান প্রায় ৪৫ বছর বয়সী ওই মহিলা সঙ্গীতা ‘একুফাগিয়া’ নামক রোগে ভুগছেন৷ যার ফলে যার কারণে তিনি ধাতুর জিনিস খেয়ে ফেলেন৷ হাসপাতালের চিকিৎসক নীতিন পরমার জানিয়েছেন প্রায় দুঘণ্টা ধরে এই অপারেশন চলে৷

আরও পড়ুন: দলীয় বৈঠকে ভোল পালটে মৌসমের গলায় তৃণমূল বিরোধিতার সুর

অপারেশনে পেট থেকে বেরিয়েছে লোহার পেরেক, নাট-বল্টু, সেফটিপিন, ইউপিন, চুলে লাগানোর ক্লিপ, চুড়ি, গলার চেন, এমনকি মঙ্গলসূত্রও৷ এক সরকারি মানসিক চিকিৎসালয় থেকে ওই মহিলাকে হাসপাতালে আনা হয়েছিল৷ জানা গিয়েছে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছিলেন ওই মহিলা৷ সেখান থেকে এনেই ওই মানসিক চিকিৎসালয়ে ভর্তি করা হয় তাঁকে৷

চিকিৎসক পরমার জানিয়েছেন, “ওই মহিলা পেটের যন্ত্রণা নিয়ে ভর্তি হন৷ ওনার পেট পাথরের মত শক্ত ছিল৷ এক্সরে থেকে খোলসা হয় যে তাঁর পেটের ভিতরে কিছু ফরেন পার্টিকলস রয়েছে৷ সেফটিপিন তাঁর ফুসফুসে আটকে ছিল৷ মহিলার পেটের ভিতরে থাকা এই সব জিনিস পেটের ভিতরেও ফুটো করে দিয়েছিল৷”

আরও পড়ুন: ক্ষমতাশালীরা নেহরুকে অবজ্ঞা করলেও গণতন্ত্রের স্বার্থে তাঁকে মর্যাদা দেবই : সোনিয়া

চিকিৎসকের কথা অনুসারে একুফাগিয়া রোগের কারণে রোগী লোহা ও অন্যান্য ধাতুর তৈরি জিনিস খেয়ে ফেলে৷ কোনও ধারালো বস্তু বা হজম না হওয়া জিনিস গিলে ফেলে এইসব রোগীরা৷ এইসব রোগীদের বোঝার ক্ষমতা থাকেনা কোনটা খাবার ও কোনটা খাবার নয়৷ সারা বছরে এরকম রোগী একটা কিমবা দুটো আসে হাসপাতালে৷

আরও পড়ুন: ট্রাম্পের বিরুদ্ধে কেস করল CNN