করাচি: কেরিয়ারের সেরা সময়ে বাইশ গজে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের সামনে ত্রাস হয়ে ওঠতেন শোয়েব আখতার৷ তাঁর গতিতে পরাস্ত হয়েছে বিশ্বের তাবড় তাবড় ব্যাটসম্যানরা৷ ‘রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস’ এবার ভারতীয় দলের বোলিং করার ইচ্ছেপ্রকাশ করলেন৷

প্রাক্তন পাক স্পিড-স্টার আখতার বলেছন, ‘আরও আক্রমণাত্মক, দ্রুত এবং কথা বলাতে পারে এমন পেসার তৈরি করতে পারি৷ প্রস্তাব পেলে ভারতের বোলিং কোচ হতে আগ্রহী।’ সোশ্যাল মিডিয়া ‘হ্যালো’-তে এক সাক্ষাৎকারে তাঁর এই ইচ্ছের কথা জানান প্রাক্তন পাক পেসার৷

ভারতের বর্তমান বোলিং কোচ ভরত অরুণ। ভবিষ্যতে তিনি ভারতীয় বোলিং ইউনিটের সঙ্গে যুক্ত হতে চান কিনা জানতে চাইলে, তিনি ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। আখতার বলেন, ‘আমি অবশ্যই করব। আমার কাজ জ্ঞ্যান ছড়িয়ে দেওয়া। আমি যা শিখেছি, তা অন্যদের ছড়িয়ে দিতে পারলে খুশি হব৷’

ক্রিকেটের দ্রুততম বোলারদের মধ্যে একজন তিনি৷ শোয়েব আরও বলেন, ‘আমি বর্তমান খেলোয়াড়দের চেয়ে আরও আক্রমণাত্মক, দ্রুত এবং আরও কথা বলা বোলার তৈরি করব যারা ব্যাটসম্যানদের শাসন করতে পারবে৷ যা আপনি খুব উপভোগ করবেন।’

প্রাক্তন এই পাক স্পিড-স্টার উদীয়মান ক্রিকেটারদের মধ্যে নিজের জ্ঞ্যান ভাগ করে নিতে চান এবং আক্রমণাত্মক বোলার তৈরি করতে চান। ভারতীয় দলের পাশাপাশি আইপিএল তাঁর প্রাক্তন ফ্র্যাঞ্চাইজি কলকাতা নাইটরাইডার্সের বোলিং কোচ হতেও চান৷ আইপিএলের প্রথম সংস্করণে কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলেছিলেন শোয়েব৷

নিজের সেরা সময়ে শোয়েবর সঙ্গে সচিন তেন্ডুলকরের ‘ডুয়েল’ লেগে থাকত৷ যা উপভোগ করতেন দর্শকরা৷ প্রাক্তন এই পেসার ১৯৯৮-এ ভারতীয় ব্যাটিং গ্রেট সচি সঙ্গে তাঁর প্রথম কথোপকথনের কথা তুলে ধরে বলেন, ‘আমি ওকে আগে দেখেছিলাম কিন্তু জানতাম না ও ভারতে কত বড় নাম ছিল। চেন্নাইতে আমি জানতে পেরেছিলাম যে, ওকে ভারতে ‘দেবতা’ হিসেবে মানেন সমর্থকরা৷

তবে লিটল মাস্টারের সঙ্গে তাঁর যে দারুণ বন্ধুত্ব ছিল তাও মনে করিয়ে দেন আখতার৷ তিনি বলেন, ‘মনে রেখো, ও আমার খুব ভালো বন্ধু। ১৯৯৮ সালে আমি যখন দ্রুত গতিতে বোলিং করতাম, তখন ভারতীয় দর্শকরা আমাকে পছন্দ করত৷ ভারতে আমার বড় ফ্যান ফলোয়ার রয়েছে৷’

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব