নয়াদিল্লিঃ তাজ মহল পুরোপুরি হিন্দু মন্দির, সেই তরজায় ফের হাওয়া লাগছে বলে ভয় পাচ্ছে আগ্রা প্রশাসন। শিবসেনার ভয়ে নিরাপত্তা বলয় আরও শক্তিশালী হচ্ছে তাজ মহলের। ভারতের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের অনুরোধে সম্মতি জানিয়ে নজরদারি বাড়াচ্ছে আগ্রা প্রশাসন।

জানা গিয়েছে, আগ্রার শিবসেনা সভাপতি বিনু লাভানিয়া তাজ মহলের অন্দরে পুজো করার হুমকি দিয়েছে।

ভারতের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ একটি চিঠি লিখে রাজ্য প্রশাসনকে জানিয়েছেন, ১৯৫৮ সালের প্রাচীন সৌধ, প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী, তাজমহলের মতো জায়গায় নতুন ভাবে কোনও ধর্মাচরণ করা যায় না। আইন অনুযায়ী ওই সৌধস্থলে নতুন করে কোনও ধর্মাচরণ করা যাবে না। এর ভিত্তিতেই প্রশাসনের তরফে তাজমহল চত্বরে অতিরিক্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়।

গতবছর শিব আরতির ভিডিওকে কেন্দ্র করে বিতর্কের সূত্রপাত। ওই ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পরে শুরু হয় চাঞ্চল্য। ভিডিওটিতে দেখা গিয়েছে, তাজ মহলের ভিতরে এক ব্যক্তি শিবের আরতি করছেন, আর অপর একজন তাঁর সেই আরতির ভিডিও করছেন। সন্ধেয় তাজমহল ঘুরতে আসা দর্শকরা অভিযোগ করেন, ২ জন তাজের ভেতরের মার্বেলের মেঝেয় বসে শিবপুজো করছেন। সঙ্গে পুজোর সামগ্রীও রয়েছে।

জুলাই ১৭ তারিখ শিব সেনার আগ্রা শহর কমিটির সভাপতি ভিনু লাভানিয়া বলেন, “তাজমহল কোনও মুসলিম সৌধ নয়। এটা তেজো মহালয়া, ভগবান শিবের মন্দির। আমরা গোটা শ্রাবণ মাসজুড়ে প্রতি সোমবার তাজমহলে ঢুকে যজ্ঞ এবং পুজো করতে চাই।”

শিব সেনার ওই নেতা প্রশাসনকে কার্যত হুমকি দিয়েছেন। সোমবার যে কোনওভাবে তাঁরা মন্দিরে ঢুকবেনই। প্রশাসন বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে তার ফল ভাল হবে না বলেও জানান শিবসেনার এই নেতা।