স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের খাসতালুক খড়গপুরে উপনির্বাচনে প্রার্থী দিল শিবসেনা৷ ওই কেন্দ্রের প্রার্থী হিসেবে দেবায়ন পতির নাম ঘোষণা করা হয়েছে। পেশায় ব্যবসায়ী বছর ৩৪-এর দেবায়ন দীর্ঘদিন ধরেই শিবসেনার সদস্য বলে জানা গিয়েছে।

আগামী ২৫ নভেম্বর রাজ্যের তিনটি কেন্দ্রে উপনির্বাচন। উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জ, নদিয়ার করিমপুর এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের খড়গপুর সদরে উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ হতে চলেছে ওই দিন। এই তিনটি আসনের মধ্যে গতবার বিজেপির দখলে ছিল খড়গপুর৷

২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটে এই কেন্দ্র থেকে ৬৩০৯ ভোটে জয়ী হন দিলীপ ঘোষ। তবে গত লোকসভা ভোটে তিনি মেদিনীপুর কেন্দ্র থেকে সংসদে চলে যাওয়ায় আসনটি বিধায়ক-শূন্য হয়ে পড়ে। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে অবশ্য বিধানসভা ভিত্তিক ফলাফলের নিরিখে খড়গপুর সদরে বিজেপি এগিয়ে রয়েছে ৪৫,১২৩ ভোটে।

শিবসেনার রাজ্য মুখপাত্র অশোক সরকার বলেন, “২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে ১৭টি কেন্দ্রে আমাদের প্রার্থী ছিল। কিন্তু বিধানসভা ভিত্তিক নির্বাচনে আগে লড় হয়নি। খড়গপুর উপনির্বাচন দিয়েই শুরু। আগামী পুরসভা ও একুশের বিধানসভা নির্বাচনেও প্রার্থী দেওয়া হবে।”

কিন্তু প্রশ্ন উঠছে, লড়াইয়ের জন্য তিনটি কেন্দ্রের মধ্যে খড়গপুরকেই কেন বেছে নিল শিবসেনা? রাজনৈতিক মহল মনে করছে, মহারাষ্ট্রে বিজেপি-শিবসেনার বিবাদই এর বড় কারণ৷ বানিজ্যনগরীতে দুই দল জোট গড়ে বিধানসভা ভোটে লড়েও সরকার গড়তে পারেনি৷ দু-দলের মধ্যেই সম্পর্ক ভেঙে গিয়েছে৷ এনডিএ থেকেও বেরিয়ে এসেছে শিবসেনা৷ এইমুহূর্তে মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়েছে৷ এই অবস্থার জন্য পুরোপুরি বিজেপিকেই দুষছে শিবসেনা৷

এদিকে, বাংলায় প্রধান বিরোধী শক্তি হিসেবে বিজেপি জায়গা করে নিয়েছে৷ লোকসভা নির্বাচনে এরাজ্যে ১৮টি আসন পেয়েছে তারা৷ বঙ্গ শিবসেনা সূত্রে খবর, এরাজ্যে বিজেপিই তাদের মূল টার্গেট৷সেকারণেই এখানে প্রার্থী দেওয়ার জন্য খড়গপুরের মিতো বিজেপির একটা শক্ত ঘাঁটিকে বেছে নেওয়া হয়েছে৷ রাজনৈতিক মহলের মত, শিবসেনা এখানে জিততে পারবে না ঠিকই কিন্তু তারা বিজেপির ভোট কাটবে৷ যা সুবিধে করে দেবে তৃণমূল কংগ্রেসকে৷

উল্লেখ্য, ১৯-এর লোকসভা ভোটে বাংলায় ১৫টি আসনে প্রার্থী দিয়েছিল শিবসেনা৷ সেই আসনগুলির মধ্যে খড়গপুর কেন্দ্রটি ছিল৷