নয়াদিল্লি: অযোধ্যায় রাম মন্দিরের উত্তাপ পড়ল লোকসভার অন্দরেও। দ্রুত মন্দির নির্মাণের জন্য আইন পাশ করানোর দাবিতে লোকসভায় বিক্ষোভ দেখাল শিবসেনার সাংসদেরা।

গত মঙ্গলবার থেকে লোকসভায় শীতকালীন অধিবেশন শুরু হয়েছে। দ্বিতীয় দিন থেকেই রাম মন্দিরের দাবিতে আওয়াজ তুলতে শুরু করেছে সেনার সাংসদগণ। সংসদের ভিতরে এবং বাইরে সমানতালে মন্দির নির্মাণের দাবিতে তাঁরা সোচ্চার হয়েছেন।

বিষয়টি বিশেষভাবে নজরে এসেছে বৃহস্পতিবার। কারণ এদিন সংসদের জিরো আওয়ারে শিবসেনা সাংসদেরা রাম মন্দিরের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন। যাদের নেতৃত্বে ছিলেন আনন্দ রাও আবসুল। তিনি বলেন, “আগামী নির্বাচনের আগে রাম মন্দির নির্মাণের জন্য অর্ডিন্যান্স নিয়ে আসুক সরকার।”

এদিন লোকসভার অধিবেশন চলাকাইল দু’বার মুলতুবি করে দেন অধ্যক্ষ সুমিত্রা মহাজান। যার কারণে দীর্ঘ সময় ধরে বন্ধ ছিল সংসাদের স্বাভাবিক কাজ। এর মাঝেও গুরুত্বপূর্ণ জিরো আওয়ারে শিবসেনাকে প্রশ্ন তোলার সুযোগ দিয়েছিলেন অধ্যক্ষ সুমিত্রা। সেই সুযোগে নিজেদের ক্ষোভ উপরে দিয়েছেন শিবসেনা সংসদেরা।

শিবসেনা সাংসদ আনন্দ রাও আবসুল বলেছেন যে অটল বিহারী বাজপায়ীর জামানায় অনেক শরিক দল ছিল সেই সময় মন্দির নির্মাণ কঠিন ছিল। এখন মোদী সরকারের সেই চাপ নেই। তাহলে কেন মন্দির নির্মাণের কাজ এগোচ্ছে না। তিনি আরও বলেছেন, “হিন্দুত্বের জন্যেই আমরা বিজেপির সঙ্গ দিয়েছিলাম। কিন্তু এখন বিজেপি সেই সকল প্রতিশ্রুতি ভুলে গিয়েছে।”

বুধবার সংসদের বাইরে বিক্ষোভ দেখায় শিবসেনা সংসদেরা। স্লোগান দেওয়া হয় বিজেপির বিরুদ্ধে। রাম মদনির নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০১৪ সালে ক্ষমতায় এলেও সেই প্রতিশ্রুতি পূরণে মোদী সরকার ব্যর্থ বলে দাবি করেন সেনার সাংসদেরা।

এর আগে গত মাসে অযোধ্যায় ধর্মসভা করেছে শিবসেনা। প্রচুর সংখ্যক সমর্থক এবং দলের শীর্ষ নেতৃত্ব সেই ধর্মসভায় হাজির ছিলেন। সেই মঞ্চ থেকেও রাম মন্দির নির্মাণের জন্য অর্ডিন্যান্স নিয়ে আসার দাবি করা হয়েছিল।