তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: বছর পাঁচেকের ছোট্ট শিল্পা। তার বয়সী আর পাঁচ জন শিশুর মতো যখন বাঁকুড়ার ওন্দার নবজীবনপুর গ্রামের শিল্পা বাগদীরও হেসে খেলে বেড়ানোর কথা, তখন সে ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে শয্যাশায়ী। এই বয়সে হারিয়ে ফেলেছে দু’চোখের দৃষ্টি শক্তিও। এই অবস্থায় ছোট্ট মেয়েকে নিয়ে দিশেহারা বাবা টিরু বাগদী।

দিন আনি দিন খাই সংসারে নবজীবনপুর গ্রামের টিরু বাগদীর মেয়ে শিল্পার গত বছর ব্রেন টিউমার ধরা পড়ে। এই অবস্থার এলাকার মানুষের কাছে চেয়ে চিন্তে সুদূর তামিলনাড়ুর একটি হাসপাতালে অস্ত্রপচার করানো হয়।

কিন্তু চিরতরে হারায় দু’চোখের দৃষ্টি শক্তি। এমন পরিস্থিতি দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে আনতে চিকিৎসা তো দূর অস্ত, শুধুমাত্র টাকার অভাবে মাথার অস্ত্রপচারের সেলাই পর্যন্ত খোলানো সম্ভব হয়নি। এমনটাই জানিয়েছেন শিল্পার বাবা টিরু বাগদী। বাবার সঙ্গে শিল্পা নিজেও সর্বস্তরের সহৃদয় ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে তার চিকিৎসায় সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসার আবেদন জানিয়েছে। আর সেই আবেদন নিয়ে টিরু বাগদী এখন সব কাজ ফেলে মানুষের সাহায্যের আবেদন নিয়ে মানুষের কাছে যাচ্ছেন।

এই অবস্থায় শিল্পা ও তার পরিবারের পাশে দাড়িয়েছে ওন্দা যুব সমাজ নামে একটি সংগঠন। সংগঠনের পক্ষে সুদীপন পাল বলেন, ‘‘শিল্পার বাবা এলাকায় গান গেয়ে সংসার চালান। একেবারে নিম্নবিত্ত পরিবারের সন্তান এই শিশুটির পাশে আমরা আমাদের সীমিত ক্ষমতার মধ্যেও পাশে দাঁড়িয়েছি। কিন্তু তা পর্যাপ্ত নয়।’’ সকলের মিলিত প্রচেষ্টা ও আর্থিক সাহায্যে ছোট্ট শিল্পা আবারও দৃষ্টিশক্তি ফিরে পাক এমনটাই তারা চাইছেন বলে তিনি জানান।