নয়াদিল্লি: নয়াদিল্লির পাকিস্তানি হিন্দু উদ্বাস্তু শিবিরে সারপ্রাইজ ভিজিট করে এলেন জাতীয় দলের ওপেনার শিখর ধাওয়ান। কঠিন সময়ে উদ্বাস্তু শিবিরের কচিকাচাদের হাতে ক্রিকেট কিটস তুলে দিয়ে তাদের মুখে হাসি ফোটালেন ভারতীয় ক্রিকেটের ‘গব্বর’।

শনিবার নয়াদিল্লির মজলিস পার্কে মেট্রো স্টেশনের কাছে হিন্দু উদ্বাস্তু শিবিরে হঠাতই হাজির হন ধাওয়ান। আদর্শ নগরে ওই হিন্দু উদ্বাস্তু কলোনিতে ধাওয়ানকে সাদর অভ্যর্থনা জানানো হয়। কচিকাচাদের হাতে কেবল ক্রিকেট কিটস তুলে দেওয়াই নয়, উদ্বাস্তু শিবিরের সকলকে সাহায্যের উদ্দেশ্য নিয়েই সেখানে পৌঁছে গিয়েছিলেন বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান। শিবিরের মহিলাদের মডিউলার টয়লেট উপহার দেন ধাওয়ান। বেশ কিছুক্ষণ উদ্বাস্তু শিবিরের মানুষের সঙ্গে সময় কাটান ‘গব্বর’।

টুইটারে এই প্রসঙ্গে গব্বর লেখেন, ‘মজলিস পার্ক মেট্রো স্টেশনের কাছে বসবাসকারী উদ্বাস্তুদের সঙ্গে দারুণ কাটল সকালটা। ওরা যেভাবে আমাকে সেখানে অভ্যর্থনা জানিয়েছে, তাতে আমি ভীষণভাবে কৃতজ্ঞ।’ সোশ্যাল মিডিয়ায় উদ্বাস্তু শিবিরে মানুষের সঙ্গে কাটানো মুহূর্তের ছবিও পোস্ট করেছেন ধাওয়ান। ভারতীয় ক্রিকেটারের সঙ্গে সময় কাটাতে পেরে খুশি উদ্বাস্তু শিবিরের মানুষেরা।

ভবিষ্যতে উদ্বাস্তু শিবিরের মানুষদের পুনরায় সাহায্যের আশ্বাসও দিয়ে এসেছেন ভারতীয় ওপেনার। সাধারণত দিল্লি রাইডিং ক্লাব ফাউন্ডেশন উদ্বাস্তু শিবিরের মানুষের নিত্যনৈমিত্তিক চাহিদা পূরণ করে থাকে। শনিবার শবিরে ভিজিটের সময় ধাওয়ানের পাশে ছিল সেই ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধিরা।

ধাওয়ান উদ্বাস্তু শিবিরে গিয়ে আরও বলেন, তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনে খুশি। এই আইনের সুবাদেই আগামীতে পাকিস্তানি হিন্দু উদ্বাস্তুদের ভারতের নাগরিকত্ব মিলতে পারে।

উল্লেখ্য, লকডাউনের নিয়মকানুন কিছুটা শিথিল হওয়ায় ধাওয়ান এদিন সাহায্য করতে পৌঁছে যান লকডাউনে পিছিয়ে পড়া মানুষদের সাহায্যার্থে। যদিও অগস্টের আগে আউটডোর অনুশীলনে নামার অনুমতি মেলেনি ভারতীয় ক্রিকেটারদের। তাই এখনও আউটডোর প্র্যাকটিসে নামার ফুরসৎ মেলেনি ধাওয়ানেরও।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ