ঢাকা: একুশ বার হামলা হয়েছে এখনও পর্যন্ত। প্রতিবারই বেঁচে গিয়েছেন। বাংলাদেশের বিরোধী নেত্রী থাকাকালীন এই সব ভয়াবহ মুহূর্ত পার করেছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী। তেমনই একটি মামলার রায়ে কারাদণ্ডের সাজা পেলেন বর্তমান বিরোধী দলের ৪৭ জন।

২০০২ সালের ৩০ আগস্ট তৎকালীন বিরোধী নেত্রী শেখ হাসিনার কনভয়ে হামলা হয়েছিল সাতক্ষীরায়। সেই মামলায় ১৯ বছরের মাথায় এসে সাজা ঘোষণা করল আদালত।

এই মামলায় বিএনপির প্রাক্তন সংসদ সদস্য হাবিবুল ইসলাম হাবিব সহ তিনজনকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড ও অন্য ৪৭ আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছে আদালত। সাজাপ্রাপ্ত অনেকেই প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ঠ।

অভিযুক্ত ৫০ আসামীর একজন টাইগার খোকন অন্য মামলায় জেলহাজতে। পলাতক ১৫ জন। বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হুমায়ূন কবির রায় ঘোষণা করেন।

২০০২ সালের ৩০ আগস্ট সাতক্ষীরায় এক মুক্তিযোদ্ধার নির্যাতিত স্ত্রীকে হাসপাতালে দেখে মাগুরায় ফিরে যাচ্ছিলেন তৎকালীন বিরোধী নেত্রী আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। সাতক্ষীরার কলারোয়ায় পৌঁছতেই তাঁর কনভয়ে একটি বাস দিয়ে আটকে দেওয়া হয়। সেই সুযোগে শেখ হাসিনার গাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে। হামলাকারীরা ইট পাটকেল ও জুতো নিক্ষেপ করে। শেখ হাসিনার আঘাত লাগেনি। কিন্তু তাঁর সফরসঙ্গী অনেকে জখম হন।

বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাঁর উপর বেশ কয়েকটি হামলা হয়েছে আগেই। ১৯৮১ সালে নির্বাসন কাটিয়ে ফেরার পরেই তিনি আক্রান্ত হন। তবে সর্বাধিক ভয়াবহ পরিস্থিতি হয়েছিল ২০০৪ সালের ২১ অগস্ট ঢাকায়। বিরোধী নেত্রী হাসিনা তাঁর দল আওয়ামী লীগের জনসভায় ভাষণ দেওয়ার পরেই হয় গ্রেনেড হামলা। তাঁকে ঘিরে বিরলতম এক মানব দেওয়াল গড়ে তোলেন সমর্থক নেতারা। হামলায় ২৪ জনের মৃত্যু হয়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।