প্রতীকী ছবি

ওয়াশিংটন: হ্যাঁ অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, আমেরিকার আরকানসাসের ক্রেটার অফ ডায়মন্ড পার্কে একটু খোঁজাখুঁজি করলেই নাকি হীরে মেলে। পর্যটকদের কাছে পছন্দের একটি জায়গা হল এই ডায়মন্ড পার্ক। কারন এখানে বেশিরভাগ পর্যটকরা আসেন হীরে খুঁজতে। এমনকি হীরে পেলে তা বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার অনুমতিও দেওয়া আছে। সেটাই হল পর্যটকদের ঘুরতে আসার মূল আকর্ষণ হল এই পার্কে।

এই পার্কেই গত ১৬ অগস্ট পরিবারের সঙ্গে ঘুরতে গিয়েছিলেন মিরাণ্ডা হলিংশেড। হীরের খোঁজে তিনি এদিক সেদিক ঘোরা ঘুরি করতে থাকেন। শুক্রবার এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, দীর্ঘ সময় ধরে পার্কে কোথাও হীরে না পেয়ে হতাশ হয়ে গাছের ছায়ায় এসে বসে পড়েন মিরাণ্ডা। এরপরেই ইউটিউবে কিভাবে হীরে পাবো বলে সার্চ করে ভিডিও দেখতে দেখতে হঠাৎই দেখতে পান মাটিতে কি একটা যেন চক চক করছে। হাতে তোলার পর বিশেষজ্ঞদের দিয়ে পরীক্ষা করিয়ে তিনি জানতে পারেন যে ওটা সত্যি হীরে। মিরাণ্ডা জানিয়েছেন, তিনি যে হীরেটি খুঁজে পেয়েছেন সেটি হলুদ রঙের এবং এটার ওজন প্রায় ৩.৭২ ক্যারাট।

পার্ক সূত্রে জানা গিয়েছে এটিই ২০১৩ সালের পর সবথেকে বড় হলুদ হীরে। এর আগে ২০১৭ সালে এই পার্কে পাওয়া গিয়েছিলও একটি ধূসর হীরে যার ওজন ছিল ৭.৪৪ ক্যারট। হীরে পেয়ে আপ্লুত মিরাণ্ডার কাছে জানতে চাওয়া হয় সে এখন এটি নিয়ে কী করবেন? উত্তরে জানা গেল আপাতত কি করবেন এখনও ঠিক করেননি তিনি। তবে তাঁর ইচ্ছে এই হীরেটিকে কেটে তার দুই সন্তানের জন্য ভাগ করে দেওয়ার কথা শুনিয়েছেন মিরাণ্ডার মা। তবে বর্তমানে মিরাণ্ডার মুখে হীরে খোঁজার গল্প নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে মেতেছে নেটিজেনরা।