নয়াদিল্লি: জল্পনা আগেই ছিল। শনিবারই তা পরিস্কার হয়ে গেল। বিজেপির তরফে টিকিট দেওয়া হল না শত্রুঘ্ন সিনহাকে।

বিহারের যে আসন থেকে শত্রুঘ্ন সিনহা সাংসদ, সেই পাটনা সাহিব আসনে প্রার্থী করা হল রবিশঙ্কর প্রসাদকে। বেশ কিছুদিন ধরেই নরেন্দ্র মোদী তথা বিজেপির তুমুল সমালোচনা শোনা যাচ্ছিল শত্রুঘ্ন সিনহার মুখে। এমনকি কলকাতায় ব্রিগেডে মহাজোটের মঞ্চেও দেখা গিয়েছিল তাঁকে।

২০১৪-তে বিজেপির টিকিটে ভোটে জেতেন ‘বিহারীবাবু’। তবে জয়গা পাননি মন্ত্রিসভায়। কিছুদিন পর থেকেই নরেন্দ্র মোদীর সমালোচনা শুরু করেন তিনি। তবে এত সমালোচনা সত্বেও বিজেপি তাঁর বিরুদ্ধে কোনোরকম ব্যবস্থা নেয়নি।

তবে মহাজোটের মঞ্চে তাঁর উপস্থিতিতেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল যে গেরুয়া শিবিরে তাঁর দিন শেষ। এরপরেও শত্রুঘ্ন বলেন তিনি পাটনা সাহিব থেকেই লড়বেন। অন্য দল থেকে তাঁর লড়ার সম্ভাবনা প্রকট হয়। এর মধ্যে লালু প্রসাদ যাদবের ছেলে তেজস্বী যাদবের সঙ্গেও দেখা করেছেন শত্রুঘ্ন সিনহা।

এদিকে, প্রত্যাশামতোই বিহারের মাটিতে বিজেপি বিরোধী মহাজোট তৈরি হয়েছে৷ কংগ্রেস ও আরজেডি এই জোটের প্রধান দুই শরিক৷ শুক্রবার পাটনায় জোট পাকা হতেই আসন চূড়ান্ত হয়েছে৷ ২০টি আসনে লড়াই করবে রাষ্ট্রীয় জনতা দল৷ ৯টি আসনে লড়বে কংগ্রেস৷ জোটের তরফে প্রথম প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়৷

জোটের অন্যান্য শরিক হল আরএলএসপি৷ তারা লড়ছে তিনটি আসনে৷ আরও দুই শরিককে মোট ৬টি আসন ছাড়া হয়েছে৷ বিহারে বিজেপি বিরোধী মহাজোট আগে থেকেই তৈরি হয়েছিল৷ গত কয়েকটি উপনির্বাচনে সেই জোট কার্যকরী ফল করেছে৷ অন্যদিকে এনডিএ জোটে রয়েছে ক্ষমতায় থাকা দল জেডিইউ ও বিজেপি৷ মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারকে মুখ করেই বিহারের মাটিতে লোকসভার যুদ্ধে লড়াই করছে এনডিএ৷ আর মহাজোটের মুখ হচ্ছেন লালুপ্রসাদ যাদবের পুত্র তেজস্বী ও কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী৷