প্রয়াত শর্বরী দত্ত
প্রয়াত শর্বরী দত্ত

কলকাতা: মস্তিস্কে রক্তক্ষরণের জন্যই শর্বরী দত্তের মৃত্যু হয়েছে৷ ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট পাওয়ার পর, এমনটাই দাবি করছে কলকাতা পুলিশ৷

প্রখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার শর্বরী দত্তের মৃত্যু৷ বৃহস্পতিবার রাতে তাঁর ব্রড স্ট্রিটের বাড়ির শৌচাগার থেকে দেহ উদ্ধার করে পুলিশ৷ তবে কী কারণে এই মৃত্যু তা নিয়ে দেখা দেয় ধন্দ৷

পুলিশ সূত্রে খবর, শর্বরী দত্তের ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে, মস্তিস্কে রক্তক্ষরণের জন্যই তার মৃত্যু হয়েছে৷ প্রায় ৩৬ ঘন্টা আগে শর্বরীর মৃত্যু হয়েছে৷ দেহ উদ্ধারের পর জানা গিয়েছিল, শর্বরী দত্তের পায়ে রয়েছে আঘাতের চিহ্ন, সেখান থেকে রক্তক্ষরণও হয়েছিল প্রচুর৷

এবার জানা গেল, সেরিব্রাল স্টোক,ইন্টারন্যাল ব্রেন হেমারেজ৷ সূত্রের খবর, সম্প্রতি শর্বরী দত্ত মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন৷ ওষুধও ঠিকমতো খেতেন না৷ এছাড়া শর্বরীদেবীর ভার্টিগো ধরা পড়েছিল৷ মাথা ঘুরত তাঁর। বেশ কয়েকবার মাথ ঘুরে পড়েও গিয়েছিলেন৷ স্বামীর মৃত্যুর পর শর্বরীদেবী একাকীত্বে ভুগতেন৷ ছেলে ও বৌমার সঙ্গে কিছু বিষয়ে মন কষাকষি চলছিল৷

বীরভূমের আহমেদপুরে একটি জমির অংশীদার ছিলেন শর্বরীদেবী৷ সেই জমি ছেলের নামে করে দেন তিনি৷ যদিও ছেলে পুলিশকে জানিয়েছেন, মায়ের সঙ্গে তাঁদের সম্পর্ক ভালোই ছিল। কিছুদিন আগেও তাঁরা শান্তিনিকেতন ঘুরে আসেন৷ বৃহস্পতিবার দুপুর থেকেই তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা যাচ্ছিল না বলে সূত্রের খবর। ডেকেও তাঁর সাড়া পাওয়া যায়নি৷

রাতে তাঁর ব্রড স্ট্রিটের বাড়ির শৌচাগার থেকে দেহ উদ্ধার করে পুলিশ৷ নিজের বাড়িতে ছেলে ও পুত্রবধূর সঙ্গে থাকতেন তিনি। এদিন সকাল থেকে তাঁদের সঙ্গে দেখা হয়নি শর্বরী দত্তের৷ রাতে ছেলে নিচে এসে মায়ের খোঁজ নেন৷ তখনই জানা যায় তিনি শৌচাগারে পড়ে আছেন৷

tদীর্ঘদিন ধরে দেশে -বিদেশে ফ্যাশন ডিজানিং করেছেন তিনি। কাজ করেছেন প্রসেনজিৎ থেকে শুরু করে টলিউডের তাবড় তাবড় অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সঙ্গে। অভিষেক বচ্চনের বিয়ের পোশাকও ডিজাইনি করেছিলেন শর্বরী। তাঁর এভাবে হঠাৎ চলে যাওয়ায় শোকের ছায়া বিভিন্ন মহলে৷

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।