মেলবোর্ন: হাতে গোনা আর মাত্র কয়েকটাদিন। তারপরেই বহু প্রতীক্ষিত অস্ট্রেলিয়া সফরে অভিযান শুরু করবে ভারতীয় দল। ওয়ান-ডে হোক, টি২০ কিংবা টেস্ট। ক্যাঙ্গারুর দেশে সবক’টি ফর্ম্যাটেই ভারতীয় বোলিং বিভাগের গুরুদায়িত্ব বঙ্গ পেসার মহম্মদ শামির কাঁধে। কিন্তু অজিভূমে সফর শুরু করার আগে গুরুদায়িত্ব কাঁধে নিয়ে কতোটা চাপে শামি। বঙ্গ পেসার জানাচ্ছেন, অস্ট্রেলিয়া সফরের আগে আইপিএলের পারফরম্যান্স অনেকটাই চাপ সরিয়ে দিয়েছে তাঁর, অনেকটাই আত্মবিশ্বাসী তিনি।

সদ্য-সমাপ্ত আইপিএলে ২০টি উইকেট নিয়ে বেশ সপ্রতিভ ছিলেন মহম্মদ শামি। যার মধ্যে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে একটি ম্যাচে সুপার ওভারে পাঁচ রান ডিফেন্ড করে দলকে জিতিয়েছিলেন কিংস ইলেভেন পেসার। আর এই পারফরম্যান্স অস্ট্রেলিয়া সফরের আগে চাপ অনেকটাই হালকা করে দিয়েছে তাঁর, বিসিসিআই’কে সম্প্রতি দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জানালেন শামি। বঙ্গ পেসার জানিয়েছেন, ‘আইপিএলের কারণে আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সফরের আগে চাপমুক্ত হয়ে আমি প্রস্তুতি নিতে পারছি। আমার মাথার উপর কোনও বোঝা নেই এইমুহূর্তে। অনেকটাই চাপহীন অনুভব করছি আমি।’

শামি আরও জানিয়েছেন, ‘লকডাউনে আমি আমার বোলিং এবং ফিটনেস নিয়ে অনেক পরিশ্রম করেছি। আমি জানতাম তাড়াতাড়ি হোক কিংবা দেরিতে আইপিএল ঠিক অনুষ্ঠিত হবেই। আর আমি সে কারণেই নিজেকে প্রস্তুত করছিলাম।’ অস্ট্রেলিয়া সফরে পৌঁছে গত একসপ্তাহ ধরে লাল বলে অনুশীলন শুরু করেছেন শামি। কারণ লাল বলের ক্রিকেট বরাবরই বাড়তি দুর্বলতার জায়গা বিশ্বকাপে হ্যাটট্রিকধারী বোলারের কাছে। শামি বলছেন, ‘আমরা অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে একটা লম্বা সফর শুরু করতে যাচ্ছি যার শুরুটা হচ্ছে সাদা বল দিয়ে। পরবর্তীতে পিঙ্ক এবং লাল বলে ক্রিকেট খেলতে হবে আমাদের। আর এই মুহূর্তে আমি লাল বলেই ফোকাস করছি, আমার লেংথ এবং সিম মুভমেন্ট আরও ক্ষুরধার করার চেষ্টা করছি।’

শামি জানাচ্ছেন, আইপিএল পরবর্তী সময়ে সাদা বলের নিয়ন্ত্রণ তাঁর কাছে যথেষ্ট রয়েছে। আর ঠিক সেই কারণেই লাল বলে আরও বেশি করে অনুশীলন করছেন তিনি। বঙ্গ পেসার বলছেন, ‘আমার লাল বলে নিয়ন্ত্রণ আনাটা জরুরি। সাদা বল মোটামুটি আয়ত্তে রয়েছে আমার আর সেই কারণেই নেটে লাল বলে বেশি করে সময় ব্যয় করছি আমি।’ আর ভারতীয় দলের বোলিং বিভাগ নিয়ে বলতে গিয়ে শামি জানান, ‘আমাদের গ্রুপের মধ্যে একটা সুস্থ প্রতিযোগীতা রয়েছে। যদি দেখা যায় তাহলে সাম্প্রতিক সময়ে বিদেশ সফরে আমরা প্রায় সব ম্যাচেই বিপক্ষের ২০ উইকেট তুলে নিয়েছি।’

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।