কলকাতা: বলের রং বা পিচ কোনও ফ্যাক্টর নয়, মহম্মদ শামি যে কোনও বলে যে কোনও পিচেই ভয়ঙ্কর হয়ে দেখা দিতে পারে৷ এমনটাই মত বাংলা তথা জাতীয় দলে শামির দীর্ধদিনের সতীর্থ ঋদ্ধিমান সাহার

ইডেনে গোলেপি বলে ঐতিহাসিক দিন-রাতের টেস্টের আগে দলের তিন পেসারের ফর্ম নিয়ে এতটাই আত্মবিশ্বাসী ঋদ্ধি, যে তিনি মনে করেন কোন বলে খেলা হচ্ছে, তা নিয়ে আদৌ মাথা ব্যাথা নেই কারও৷ গোলাপি বলে ক্রিকেট খেলার কী তফাৎ চোখে পড়তে চলেছে, সে সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে এমনই মতামত জানান টিম ইন্ডিয়ার টেস্ট উইকেটকিপার৷ যদিও ঋদ্ধি স্বীকার করে নেন যে, অনুশীলনে এখনও পর্যন্ত গোলাপি বলের তেমন একটা নড়াচড়া লক্ষ্য করেননি তাঁরা৷

আরও পড়ুন: ক্রিকেট উৎসবের আবহে কলকাতা এখন পিঙ্ক সিটি

ঋদ্ধিমান বলেন, ‘পেসাররা যে রকম ফর্মে রয়েছে, তাতে গোলাপি বল কোনও ফ্যাক্টর নয়৷ বিশেষ করে শামি যে কোনও বলে যে কোনও পিচেই বিপক্ষকে শেষ করে দিতে পারে৷ ওর গতি আছে এবং ও বলকে রিভার্স স্যুইংও করাতে পারে যথাযথ৷ আমরা এখনও বলের তেমন একটা স্যুইং দেখিনি৷ তবে আমাদের পেসারদের ফর্মের দিতে তাকালে বলের রংটা কোনও বিষয় নয় বলেই মনে হয় আমার৷’

ইডেনে ক্লাব ক্রিকেটে গোলাপি বলে দিন-রাতের ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে শামি ও ঋদ্ধির৷ যদিও সেটা ছিল গোলাপি কোকাবুরা বলে৷ এবার টেস্ট খেলা হবে গোলাপি এসজি বলে৷ এই প্রথমবার কোনও ডে-নাইট টেস্ট খেলা হবে এসজি বলে৷ তবে সাহা মনে করেন যে সন্ধ্যার সময় বল দেখা তুলনায় সমস্যার হয়ে দেখা দেবে ব্যাটসম্যানদের কাছে৷

আরও পড়ুন: দিনের ‘কঠিন সময়ে’ শামির বলে প্রস্তুিত সারলেন কোহলি

ঋদ্ধি বলেন, ‘বলের রংটাই যা বদলেছে৷ এটা একটু অন্যরকমভাবে তৈরি৷ যদিও ম্যাচের সময়টাও বদলেছে৷ টুইলাইট পরিস্থিতিতে বল দেখা ব্যাটসম্যানদের পক্ষে একটু কঠিন হতে পারে৷ গোলাপি বল পেসারদের সাহায্য করতে পারে, তবে ব্যাটসম্যানদের কাছে নিঃসন্দেহে চ্যালেঞ্জের৷’