মীরপুর: গড়াপেটার কালো ছায়া হোক কিংবা হালফিলের স্যান্ডপেপার গেট(Sandpaper Gate) কান্ড। ‘জেন্টলম্যানস গেম’ এর আগে কলুষিত হয়েছে বহুবার। কিন্তু আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অখুশি হয়ে লাথি দিয়ে স্টাম্প ছিটকে দেওয়া কিংবা স্টাম্প উপড়ে ফেলার ঘটনা বাইশ গজের ইতিহাসে নজিরবিহীন। আর শুক্রবার সেই নজিরবিহীন এবং একইসঙ্গে ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়ে শিরোনামে বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ অলরাউন্ডার শাকিব আল হাসান(Shakib Al Jasan)।

না হোক আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। শাকিব আল হাসানের মত একজন রোল-মডেলের থেকে তো গলি ক্রিকেটেও এই ঘটনা শোভা পায় না। সেখানে ঢাকা প্রিমিয়র লিগের(DPL) মতো বাংলাদেশের একটি উল্লেখযোগ্য টুর্নামেন্টে খেলতে নেমে আরও একবার বোধহয় ক্রিকেটকে কলুষিত করলেন শাকিব। আবাহনী লিমিটেডের বিপক্ষে এদিন মীরপুরে ম্যাচ ছিল মহামেডান স্পোর্টিং(MSC)। তাঁর ডেলিভারিতে বিপক্ষ ব্যাটসম্যান মুশফিকুরের(Musfiqur Rahman) বিরুদ্ধে ওঠা এলবি ডব্লুর আবেদন নাকচ হলে প্রথমে লাথি মেরে স্টাম্প ভেঙে দেন বিশ্বের প্রাক্তন পয়লা নম্বর অলরাউন্ডার তথা মহামেডান স্পোর্টিং অধিনায়ক।

এরপর বৃষ্টির কারণে ফিল্ড আম্পায়ার খেলা বন্ধ করার নির্দেশ দিলে ফের সিদ্ধান্তে অখুশি হন বাংলাদেশের প্রাক্তন অধিনায়ক। এরপর ক্ষুব্ধ শাকিব এসে তর্ক জুড়ে দেন আম্পায়ারের সঙ্গে এবং নন-স্ট্রাইক এন্ডের উইকেট উপড়ে ফেলে দেন। ড্রেসিংরুমে ফেরার পথে আবার আবাহনীর কোচ খালেদ মাহমুদের সঙ্গে কথা কাটাকাটিতেও জড়িয়ে পড়েন দেশের প্রাক্তন অধিনায়ক৷

ঘটনায় বাংলাদেশ ক্রিকেটে বিরাট শোরগোল। তবে ঘটনার অনতিপরে নিজের ভুল বুঝতে পেরে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনুরাগীদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন শাকিব। ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘প্রিয় ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীরা, যারাই আজকের ম্যাচে আমার আচরণ দেখে কষ্ট পেয়েছেন বিশেষ করে ঘরে বসে যারা খেলা দেখেছেন, তাদের কাছে আমি দুঃখ প্রকাশ করছি এবং ক্ষমা প্রার্থনা করছি। আমার মতো অভিজ্ঞ একজন ক্রিকেটারের কাছ থেকে এমনটা মোটেও কাম্য নয়, কিন্তু মাঝে মাঝে প্রতিকূল পরিবেশে এমনটা হতেই পারে।  এমন ভুলের জন্য সকল দল, কর্তৃপক্ষ, টুর্নামেন্ট সংশ্লিষ্ট সকল কর্মকর্তা ও আয়োজকদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। আশা করি ভবিষ্যতে এমন কোন কাজে আমি আর জড়াবো না। সকলের জন্য ভালোবাসা।’

এখন প্রশ্ন হচ্ছে এমন গর্হিত অপরাধের পর ক্ষমা চেয়েও কী শাস্তি এড়ানো সম্ভব শাকিবের পক্ষে? ঢাকা প্রিমিয়র লিগ চেয়ারম্যান কাজি ইনাম(Kazi Inam) গোটা বিষয়টি ম্যাচ রেফারির রিপোর্টের উপরেই ছাড়ছেন। যা পরিস্থিতি তাতে আইসিসি(ICC) স্বীকৃত ঢাকা প্রিমিয়র লিগে এমন ক্ষমাহীন অপরাধ করে ফের বিসিবি-র শাস্তির মুখে পড়া সাকিবের এখন সময়ের অপেক্ষা। এর আগে ২০১৯ আইপিএলে গড়াপেটার প্রস্তাব পেয়েও তা বেমালুম চেপে যাওয়ার কারণে আইসিসি-র দুর্নীতিদমন শাখা শাকিবকে একবছরের জন্য সবধরনের ক্রিকেট থেকে নির্বাসনে পাঠিয়েছিল। গতবছরের শেষদিকেই সেই নির্বাসন থেকে মুখি পেয়েছেন শাকিব।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.