নয়াদিল্লি: আবারও পিছিয়ে গেল শাহিনবাগ মামলার শুনানি। আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছে শীর্ষ আদালত। এই মামলায় এখনই কোনও অন্তর্বর্তী আদেশ দিল না সুপ্রিম কোর্ট।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন বাতিলের দাবি গত ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে দিল্লির জামিয়া নগরের শাহিনবাগে অবস্থান আন্দোলনে বসেছেন মহিলারা। প্রতিদিনই সেই অবস্থান আন্দোলনে ভিড় বাড়ছে। উলটোদিকে, প্রায় দু’মাস ধরে চলা

একটানা আন্দোলনের জেরে ব্যাপক যানজট হচ্ছে ওই এলাকায়। দুর্বিষহ যন্ত্রণার সম্মুখীন হচ্ছেন অফিসযাত্রীরা। হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে স্কুল পড়ুয়াদের। ঘুরপথে যাতায়াতে সময় ও গাড়িভাড়া বেশি লাগছে। আর তাই অবিলম্বে প্রশাসনিক হস্তক্ষেপে শাহিনবাগের আন্দোলন তুলে দেওয়ার দাবি তোলেন অনেকে। অবস্থানকারীদের সরানোর আবেদন করে একটি মামলা দায়ের করা হয় সুপ্রিম কোর্টে।

শুক্রবারও সেই মামলার শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনের কারণে সেই শুনানি পিছিয়ে সোমবার করার কথা জানিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। কিন্তু এদিনও সেই মামলায় অন্তর্বর্তী কোনও আদেশ দিল না সুপ্রিম কোর্ট। বিজেপির এক নেতা শীর্ষ আদালতে মামলা দায়ের করেন।

ওই বিজেপি নেতার অভিযোগ, দিনের পর দিন শাহিনবাগ চত্বর অবরুদ্ধ থাকলেও কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না দিল্লি সরকার। তাঁর আরও অভিযোগ, একটানা আন্দোলনের জেরে নয়ডার সঙ্গে দিল্লির সংযোগকারী এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা অবরুদ্ধ থাকায় সমস্যায় পড়ছেন হাজার হাজার মানুষ। এমনকী হাসপাতাল ও স্কুলে যেতে গিয়েও হেনস্থা হতে হচ্ছে। প্রশাসনিক হস্তক্ষেপে আন্দোলনকারীদের সরানোর আবেদন জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন ওই বিজেপি নেতা।