দেরাদুন : জম্মু ও কাশ্মীরের রাজৌরি জেলায় আইডি নিষ্ক্রিয় করতে গিয়ে শহিদ হন মেজর চিত্রেশ সিং বিস্ত। রাস্তায় বিছিয়ে থাকা আইডি নিষ্ক্রিয় করার কাজে নিযুক্ত ছিলেন শহিদ এই ভারতীয় সেনার অফিসার৷ শহিদ মেজরের পরিবার যখন তাঁর বিয়ের কার্ড বিলিতে ব্যস্ত, ঠিক সেই সময়েই ছেলের মৃত্যুর খবর এসে পৌঁছল অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসারের বাবা এসএস বিস্তের ফোনে৷

আগামী ৭ মার্চ বিয়ের দিন ঠিক হয়েছিল মেজর চিত্রেশের৷ তাঁর বাড়িতে বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল জোর কদমে৷ বারবার তাঁকে ছুটি নিয়ে বাড়ি ফিরতে বলেছিলেন বাবা৷ তবে তিনি বাবাকে জানিয়েছিলেন, এখন দেশের যা পরিস্থিতি সেই দিকে তাকিয়ে তিনি কোনও ভাবে বিয়ের প্রস্তুতির জন্য ছুটি নিয়ে আসতে পারবেন না৷ প্রয়োজন পড়লে বিয়ের আগের দিনেই হয়ত এসে পৌঁছবেন তিনি৷ তবে ফেরা আর হল না৷

বাড়ির ছোট ছেলের বিয়ে নিয়ে যথেষ্ট উৎসাহ ছিল বিস্ত পরিবারে৷ আজ সেই বাড়ি শোকস্তব্ধ। কান্নায় ভেড়ে পড়েছেন সবাই৷ চিত্রেশের আত্মীয়রা জানিয়েছেন এখনও পর্যন্ত ২৫টি বোমা নিষ্ক্রিয় করেছেন চিত্রেশ৷ ছোটবেলা থেকে পড়াশোনায় মেধাবী ছিলেন এই পরিবারের ছোট ছেলে৷ ৩১ বছর বয়সি চিত্রেশ উত্তরাখণ্ডের বাসিন্দা৷ তিনি ভারতীয় সেনা অ্যাকাডেমি দেরাদুন থেকে ২০১০ পাসআউট হয়েছিলেন৷

আরও পড়ুন: ভয়ঙ্কর জঙ্গি হামলায় পিছিয়ে গেল দেশের নির্বাচন

বর্তমানে তিনি সেনার ইঞ্জিনিয়ারিং কোরে ছিলেন৷ শহিদ নেজরের বাবা এসএস বিস্ত উত্তরাখণ্ড পুলিশে ছিলেন৷ মেজরের বড় ভাই নিরজ বিস্ত ব্রিটেনে সিভিল ইঞ্জিনিয়ার৷ খবর পেয়ে তিনিও দেহরাদুনের বাড়িতে ফিরে আসেন৷ বাড়িতে বিয়ের সমস্ত প্রস্তুতি প্রায় শেষ হয়ে গিয়েছিল৷ বিয়ের কার্ডও বিলি শুরু করেছিল পরিবার৷ তবে একটি ঘটনা পরিবারের সমস্ত স্বপ্ন ছিন্নভিন্ন করে দিয়েছে বলে প্রতিবেশীরা জানাচ্ছেন৷

আরও পড়ুন: হিন্দুস্তান কো রোনা চাহিয়ে! গোপনে মাসুদের সেই বার্তা আসে কাশ্মীরে

গত বৃহস্পতিবার পুলওয়ামায় ভয়াবহ জঙ্গি হামলায় শহিদ হন ৪০ জন। এখনও ক্ষোভে ফুঁসছে গোটা দেশ। এর মধ্যেই ফের রক্তাক্ত হয় সীমান্ত। আইইডি বিস্ফোরণে প্রাণ যায় মেজর চিত্রেশের৷ বোম্ব ডিস্পোজাল স্কোয়াডের নেতৃত্বে ছিলেন তিনি।