মুম্বই – মানুষকে ঘরবন্দি রাখতে একের পর এক পুরনো ধারাবাহিক টেলিভিশনে ফিরিয়ে আনছে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ন্ত্রক। রামায়ণ ও মহাভারতের পরে এবার টেলিভিশনে সম্প্রচারিত হচ্ছে শাহরুখ খানের ধারাবাহিক সার্কাস। ১৯৮৯ সালের এই ধারাবাহিক সে সময় ছিল বেশ জনপ্রিয়। দূরদর্শন এই দেখানো হচ্ছে আজিজ মির্জার ধারাবাহিক সার্কাস। জানা গিয়েছে ডিডি ন্যাশনাল চ্যানেল এ প্রতি রবিবার রাত আটটা থেকে এই ধারাবাহিক দেখা যাবে।

দূরদর্শন এর পক্ষ থেকে এই টুইট করে জানানো হয়েছে এই খবর। সার্কাস নামের এই ধারাবাহিকে ছিল শাহরুখ খানের প্রথম অভিনয়ের কাজ। প্রথম ধারাবাহিকেই নজর কেড়েছিলেন সেইসময়ের কিং খান। শাহরুখ ছাড়াও এই ধারাবাহিকে অভিনয় করেছিলেন রেনুকা শাহানে ও আশুতোষ গোয়ারিকের। তবে সার্কাস ছাড়াও যে পুরনো ধারাবাহিক গুলি আবার সম্প্রচারিত হচ্ছে তাদের মধ্যে রয়েছে রজত কাপুর এর ব্যোমকেশ বক্সী। এই ধারাবাহিকও দূরদর্শনে হত।

অন্যদিকে রামায়ণ ও মহাভারত নতুন করে সম্প্রচারিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। একসময় এই ধারাবাহিক গুলো দেখার জন্য মানুষ মুখিয়ে থাকতো। একটা টেলিভিশন সেটের সামনে জড়ো হতেন পুরো পরিবার। আর আজ মানুষকে ঘরবন্দি রাখতেই সেই ধারাবাহিক গুলি আবার ফিরিয়ে আনা। করণা আক্রান্তের সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে তার জন্য টানা ২১ দিন লকডাউন ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ।

১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত এই লকডাউন থাকার কথা। লকডাউন ঘোষিত হলেও এখনো বেশ কিছু এলাকায় মানুষের ভিড় চোখে পড়ছে। তারা যাতে ঘরে একঘেয়েমি অনুভব না করেন এবং পুরনো স্মৃতি রোমন্থন করতে পারেন পারেন তার জন্য পুরনো সিরিয়াল গুলি নতুন করে চালানো হচ্ছে। শুধু হিন্দি নয় বাংলা টেলিভিশনেও বেশ কিছু পুরনো সিরিয়াল চালানো হচ্ছে। প্রসঙ্গত ক্রমশ বেড়েই চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। ভারতে করনা আক্রান্তের সংখ্যা ছুঁয়েছে হাজারে। এখনো পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২৭ জনের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।