মুম্বই: সোশ্যাল মিডিয়ায় ও টিভির পর্দায় সেই দৃশ্য দেখে গায় কাঁটা দিয়ে উঠেছিল সকলের। স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে শুয়ে আছেন মৃত মা। গায়ের চাদর টেনে একরত্তি শিশু মাকে ডেকে তোলার চেষ্টা করছে। ভাবছে, মা হয়তো ঘুম থেকে উঠবে। কিন্তু মায়ের নিথর দেহ কোনও সাড়া দিচ্ছে না। এই মর্মান্তিক দৃশ্যটি ভাইরাল হয়। হয়তো কোনও দিনই ভোলা যাবে না এই দৃশ্য। মা হারা শিশুর কী হবে, এমন প্রশ্ন উঠতে থাকে। শিশুটির জন্য এবার সাহায্যের হাত বাড়ালেন অভিনেতা শাহরুখ খান।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, শাহরুখের সংস্থা মীর ফাউন্ডেশন শিশুটির সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন। যদিও একরত্তির সেই মর্মান্তিক ভিডিও ভাইরাল হতে আরও অনেকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে এসেছিলেন। এমনকি, নেতা মন্ত্রীরাও সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন।

শাহরুখ বলেছেন, মা-বাবা হারানোর যন্ত্রণা কী তিনি বোঝেন। তাই শিশুর সঙ্গে সবসময় সমর্থন থাকবে। বিহারের সেই শিশুর পরিচয় খুঁজে বের করতেও অনেকে এগিয়ে আসেন। জানা যায় তাঁর নাম রহমত। অনাহারে ভুগেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর মা আরভিনা খাতুনের। এমনকি না খেয়ে ছিল সেই শিশুও।

মীর ফাউন্ডেশনের তরফ টুইট করা হয়, যাঁরা শিশুটির কাছে পৌঁছতে সাহায্য করেছেন তাঁদের সকলের কাছে মীর ফাউন্ডেশন কৃতজ্ঞ। আমরা শিশুটির দেখভাল করছি। সেই একরত্তি এখন তার দাদুর কাছে রয়েছে।

কিন্তু কীভাবে অনাহারে এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটল তা নিয়ে এখনও প্রশ্ন উঠছে। কেন্দ্র মুখে আশ্বাস দিলেও, আদপে কতটা দরিদ্রদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।