কলকাতাঃ ছাত্র পরিষদের বিধানসভা ঘেরাও কর্মসূচি ঘিরে ধন্ধুমার-কান্ড। সুবোধ মল্লিক স্কোয়ারে কংগ্রেস কর্মীদের মিছিলে বিক্ষিপ্ত ঘটনা। সৃষ্টি হয় বিশৃঙ্খলার। শিক্ষা সংক্রান্ত দাবি দাওয়া মেটাতে এই মিছিল। জানা গিয়েছে, ওয়েলিংটন মোড়ে পুলিশ ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা করে ছাত্র পরিষদের সদস্যরা।

বিধানসভা অভিযানে জমায়েত ঘিরে শুরু বিশৃঙ্খলা। ঘটনার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে আসে বিশাল পুলিশবাহিনী। যদিও আগাম এই কর্মসূচি ঘিরে প্রথম থেকে সতর্ক ছিল পুলিশ। একাধিক ব্যারিকেড করা হয়। কিন্তু কর্মীদের ব্যাপক চাপে একের পর এক ব্যারিকেড ভেঙে যায়।

ঘটনাকে কেন্দ্র করে কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নেয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে রীতিমত হিমশিম অবস্থা হয় পুলিশের। যদিও কিছুক্ষণের মধ্যেই নিয়ন্ত্রনে আসে পরিস্থিতি।

অন্যদিকে, অধিবেশনের প্রথম দিনে শিক্ষকদের বিক্ষোভে উত্তাল বিধানসভা চত্বর। বুধবার প্রায় ৫০ জন মহিলা বিধানসভার উত্তর দিকে ভিভিআইপি গেটের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। কয়েকজন চড়ে বসেন গেটের ওপরে। পর্যাপ্ত মহিলা কর্মী না থাকায় বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণে আগে বেগ পেতে হয় পুলিশকে। দীর্ঘক্ষণের বিশৃঙ্খলার পর অবশেষে বাড়তি পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

শিক্ষক ঐক্য মঞ্চ নামে সংগঠনের সদস্যরা বুধবার বেলা ১১টার কিছু পরে বিধানসভার ভিভিআইপি গেটের সামনে পৌঁছে যান। বিক্ষোভকারীদের নিয়ে পুলিশের কাছে কোনও খবরই ছিল না।

হঠাৎই সংগঠনের পতাকা বার করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন প্রায় ৫০ জন মহিলা। কয়েকজন গেট বেয়ে উপরে উঠে পড়েন। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়।

ঘটনার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে আসে বিশাল পুলিশবাহিনী। কোনও রকমে নিয়ন্ত্রনে আসে গোটা ঘটনা। ঘটনার পরেই বিধানসভা এলাকায় বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা। বিশাল পুলিশবাহিনী সমস্ত গেটে মোতায়েন করা হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।