হাওড়া: বছর পাঁচেকের এক নাবালিকাকে যৌন নির্যাতনের অপরাধে অভিযুক্তকে সশ্রম কারাদন্ডের নির্দেশ দিল হাওড়া জেলা আদালত। শনিবার এই নির্দেশ দেন বিচারক সঞ্জীব কুমার দে। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্তের নাম জিন্নত মল্লিক। ধৃত ব্যক্তি পেশায় পুলকার চালক ছিল। শনিবার হাওড়া জেলা আদালতের পকসো আইনের বিশেষ বিচারক, সঞ্জীব কুমার দে দোষীর বিরুদ্ধে ৬ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ১৫ হাজার টাকা জরিমানার নির্দেশ দেন। অনাদায়ে আরও ৪ মাসের কারাদন্ডের নির্দেশ দেন বিচারক।

এদিন রায় ঘোষণার পর হাওড়া জেলার মুখ্য সরকারী আইনজীবী সোমনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, নির্যাতিতা নাবালিকা ডোমজুড়ের একটি স্কুলের কেজি ক্লাসের ছাত্রী। প্রতিদিন পুলকারে সে অন্য দুই সহপাঠীর সঙ্গে স্কুলে যাতায়াত করত। সেই পুলকারের ড্রাইভার ছিল জিন্নত। যাকে ‘গাড়ি কাকু’ বলে ডাকত নির্যাতিতা ওই নাবালিকা।

স্কুল থেকে ফেরার সময় পুলকার থেকে অন্য দুই ছাত্রী নেমে গেলেও জিন্নত সেই নাবালিকার উপর শারিরীক এবং যৌন নির্যাতন চালাত। ২০১৮ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি ওই ছাত্রী স্কুল থেকে আতঙ্কিত হয়ে ফিরতে দেখে পরিবারের লোকজন তার কারণ জিজ্ঞাসা করেন। তখন তাঁদের কাছে জিন্নতের কুকীর্তির কথা জানায় সেই নাবালিকা। নির্যাতিতার পরিবার স্কুল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি প্রথমে অবগত করেন। তাঁরা আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে বলেন। এরপর নির্যাতিতার পরিবার ডোমজুড় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ পাওয়ার পরেই পুলিশ গ্রেফতার করে অভিযুক্তকে। তারপর থেকে চলে মামলা। এই মামলায় বেশ কয়েকজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। শনিবার অভিযুক্তের সাজা ঘোষণা করেন বিচারক।