ছবি- প্রতীকী

প্যারিস: ১৫ বছরের কম বয়সী মেয়ের সম্মতি নিয়ে যৌন সম্পর্ক করলেও সেটি ধর্ষণ বলে গণ্য করবে ফ্রান্স। সম্প্রতি এ সংক্রান্ত একটি আইন পাস হয়েছে ফ্রান্সে।নতুন আইন অনুযায়ী, ১৫ বছরের থেকে ছোট কিশোরীর সঙ্গে যৌন সহবাস ধর্ষণ হিসাবেই গণ্য করা হবে এবং দোষীর সর্বোচ্চ ২০ বছরের কারাবাস হবে। এই আইন পাশ হওয়ার পর বৃহস্পতিবার সে দেশের আইনমন্ত্রী এরিক মোরেট্টি এটাকে তাঁদের সমাজব্যবস্থা এবং শিশুদের জন্য ‘ঐতিহাসিক আইন’ বলে উল্লেখ করেছেন।

এই বিলটি সর্বসম্মতিতে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে পাস হয়েছে। এর আগে তা উচ্চকক্ষেও অনুমোদিত হয়েছিল।ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির কিছু সদস্য বলেন, যদি ১৫ বছরের কম বয়সীদের সঙ্গে যৌন সম্পর্ককে ধর্ষণ বলা হয়, তা হলে অপ্রাপ্তবয়স্কের সঙ্গে বয়সে কয়েক বছরের বড় কেউ সম্পর্ক স্থাপন করলেই শাস্তি পাবে। এতে সমাজে বিরূপ প্রভাব দেখা দিতে পারে। তবে আইনে একটি রোমিও অ্যান্ড জুলিয়েট ধারা রাখা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, অপ্রাপ্তবয়স্কদের সঙ্গে পাঁচ বছর পর্যন্ত বড়রা সম্মতির ভিত্তিতে যৌন সম্পর্ক গড়ে তুললে তাকে ধর্ষণ বলা হবে না। কিন্তু যৌন নিগ্রহ করলে শাস্তি পেতে হবে।

উল্লেখ্য, আগে ফ্রান্সে ‘এজ অফ কনসেন্ট’-এর ক্ষেত্রে সম্মতির ন্যূনতম বয়স ছিল ১৫। তার নীচে কারো সঙ্গে যৌন সম্পর্কে জড়িত থাকার অভিযোগ এলে আইনজীবীদের প্রমাণ করতে হতো, সম্মতি ছাড়া সেই সম্পর্ক হয়েছে। তা হলেই তা ধর্ষণ বলে স্বীকৃত হতো। এবার আইন আরও কড়া করা হলো। এখন থেকে ১৫ বছর বয়সীদের নীচে যৌন সম্পর্ক মানেই ধর্ষণ বলে চিহ্নিত হবে।

ফ্রান্সে নারী ও বাচ্চাদের উপর যৌন নিগ্রহ বেড়েই চলেছে। অনেক সময় তা বাইরে বেরোয় না। কিন্তু ২০১৭ সালের মি-টু আন্দোলন অনেক হিসাবই বদলে দিয়েছে। ফ্রান্সেও তা আলোড়ন ফেলেছে। অনেক তারকার ভাবমূর্তি তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়েছে। ২০১৮ সালেই ফ্রান্স যৌনতা সংক্রান্ত অপরাধ আইন কড়া করেছে। এবার তারা এই নতুন আইন আনলো সে দেশের সরকার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.