ফাইল ছবি

গুরুগ্রাম: স্পা-এর আড়ালে রমরমিয়ে চলছিল দেহব্যবসার কাজ৷ তাও আবার গুরুগ্রামের এমজি রোডের ওপরে অবস্থিত সাহারা মলের মধ্যে৷ বুধবার এই সব অবৈধ কাজকর্মের জন্য পুলিশ সেখানে উপস্থিত হয়ে হাতেনাতে ৫ তরুণী সহ ওই স্পা-এর ম্যানেজারকে গ্রেফতার করে৷

গোপনসূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ গ্রাহকের বেশে ওই স্পা-এ হাজির হয় বলে জানান মেট্রো পুলিশ স্টেশন, স্টেশন হাউস অফিসার পুনম হুডা৷ তিনি জানান, ধৃত ওই পাঁচ তরুণীর প্রত্যেকেরই বয়স ২০-২৫-এর মধ্যে৷ ১৯৫৬-এর ইমমরাল ট্রাফিকিং(প্রিভেনশন) অ্যাক্টের বিভিন্ন ধারায় এফআইআর দায়ের করেছে পুলিশ৷

স্পা-এর ম্যানেজার ২২ বছরের জসওয়ান্ত ফরিদাবাদের বাসিন্দা৷ অভিযুক্ত এই স্পা ম্যানেজারকে বৃহস্পতিবার আদালতে তোলা হয়৷

এর কয়েকদিন আগেই, বড়সড় দেহব্যবসায়ীদের চক্রের পর্দাফাঁস হয় মুম্বইয়ের পলঘরে৷ নতুন বছরের শুরুতেই পলঘরের সতপতি পুলিশ আধিকারিকরা এই চক্রের হদিশ পেয়ে সেখানে হানা দিয়ে গ্রেফতার করে একজনকে৷ ব্রোকারকে গ্রেফতার করে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে পুলিশ৷ বুধবার পাঁচদিনের পুলিশ কাস্টডি পাঠানো হয় তাকে৷

ফাইল ছবি

জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত রাজেশ মেহের সতপতির বাসিন্দা৷ বহুদিন ধরেই সে এই দেহব্যবসার কাজ চালাচ্ছিল৷ ৩৮ বছরের অভিযুক্ত চুনাভাট্টি শিরগাঁ এলাকায় বাড়ি ভাড়া করে এই ব্যবসা চালাচ্ছিল৷ পুলিশের কাছে গোপন সূত্রে সেই খবর আসার পর সেই বাড়িতে হাজির হয়ে হাতেনাতে অভিযুক্তকে ধরা হয়৷