মাদ্রিদ: ৪৩ হাজার দর্শকাসন বিশিষ্ট গ্যালারি সম্পূর্ণ ফাঁকা। তবে দর্শকের ভার্চুয়াল উপস্থিতি এবং গ্যালারিতে তাঁদের রেকর্ড করা চিৎকারে অনেকটা ভিডিও গেমের মত দেখাচ্ছিল সেভিয়ার রোমান স্যাঞ্চেজ পিজুয়ান স্টেডিয়ামকে। তাই বলাই যায় খানিকটা ভিডিও গেমের আবহেই করোনা পরবর্তী সময় ফুটবল ফিরল স্পেনে। আর রিয়াল বেটিসকে ২-০ গোলে হারিয়ে ডার্বি জয় দিয়েই অভিযান শুরু করল সেভিয়া।

করোনার গেরোয় স্তব্ধ মাঠে ফের গড়াল বল। জার্মানির পর ইউরোপের দ্বিতীয় মেজর সকার লিগ হিসেবে শুরু হল লা লিগা। তিন মাস পর মাঠে নামতে মরিয়া ছিলেন ফুটবলাররা। কিন্তু দর্শকহীন স্টেডিয়ামে সবকিছুই যেন ফ্যাকাসে মনে হচ্ছিল। এরইমধ্যে সাইডলাইনে দাঁড়িয়ে টানা বল স্যানিটাইজ করে গেল বলবয়রা। রেফারির সঙ্গে কথা বলার সময় কিংবা গোলের পর সেলিব্রেশন সবেতেই সোশ্যাল ডিসট্যান্সিংয়ের নিয়মে কোথাও যেন জৌলুসটাই ফিকে লাগছিল।

করোনা ভাইরাসের জেরে স্থগিত হওয়ার আগে ১০ মার্চ শেষ ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছিল লা লিগায়। অর্থাৎ, ৯৩ দিন পর ফুটবল ফিরল লা লিগায়। উত্তেজক দক্ষিণী ডার্বির প্রথমার্ধ এদিন গোলশূন্য অবস্থাতেই শেষ হয়। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় ফুটবলার পরিবর্তনের ক্ষেত্রে সাময়িক যে নিয়ম বদল সেটা মেনে দু’দলের কোচই ৫ জন করে ফুটবলার পরিবর্তন করলেন। লা লিগার মধ্যে দিয়েই চালু হল এই নিয়ম। ৫৬ মিনিটে লুকাস ওকাম্পোসের গোলে ডার্বি ম্যাচে এগিয়ে যায় সেভিয়া।

এরপর ঘরের মাঠে রিয়াল বেটিসের কফিনে দ্বিতীয় পেরেকটি পুঁতে দেন ফার্নান্দো রেগেস। দুটি অর্ধেই জলপানের জন্য বিরতি গ্রহণ করেন ফুটবলার এবং ম্যাচ অফিসিয়ালরা। শেষদিকে খেলার গতি অনেকটাই কমে আসে। যার অন্যতম প্রধান কারণ বেটিসকে দেখে একবারের জন্যও মনে হয়নি তারা ম্যাচে ফিরতে চায়। জয়ের ফলে ২৮ ম্যাচে ৫০ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয়স্থানে উঠে এল সেভিয়া। অন্যদিকে ম্যাচ হেরে ১২তম স্থানে বেটিস। শনিবার মাঠে নামছে শীর্ষে থাকা বার্সেলোনা। এরপর রবিবার দু’টি ভিন্ন ম্যাচে মাঠে নামছে রিয়াল মাদ্রিদ ও অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ।

লা লিগার পর ইউরোপের তৃতীয় এবং চতুর্থ মেজর লিগ হিসেবে ১৭ জুন এবং ২০ জুন শুরু হচ্ছে যথাক্রমে ইপিএল এবং সিরি-এ।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ