টরন্টো: চলতি বছরটা খুব একটা ভালো না কাটলেও রজার্স কাপের শুরু থেকেই ছিলেন ছন্দে। কিন্তু তাল কাটল চ্যাম্পিয়নশিপ ম্যাচে এসেই। রবিবাসরীয় ফাইনালে প্রথম সেট চলাকালীনই হঠাৎ পিঠের চোট গ্রাস করল সেরেনা উইলিয়ামসকে। চোখের জলে ম্যাচ ছাড়তে বাধ্য হলেন ২৩টি গ্র্যান্ডস্লাম জয়ী মার্কিন টেনিস তারকা। অপ্রত্যাশিত কারণে সেরেনা কোর্ট ছাড়তে বাধ্য হওয়ায় রজার্স কাপের নতুন রানি ১৯ বছরের বিনাকা আন্দ্রেসকু।

প্রথম সেটে তখন কানাডিয়ান প্রতিদ্বন্দ্বীর বিরুদ্ধে ১-৩ ব্যবধানে পিছিয়ে সেরেনা। হঠাতই পিঠের চোট গ্রাস করে মার্কিন টেনিস তারকাকে। কোর্টে স্বল্প সময় প্রাথমিক চিকিৎসার পর সেরেনা অনুভব করেন তাঁর পক্ষে খেলা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। স্বাভাবিক ভাবেই আন্দ্রেসকুকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। তবে হোমটাউনে টরন্টোয় তাঁকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করার পর সেলিব্রেশনের পথে না হেঁটে সৌজন্যের এক নয়া দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন কানাডিয়ান তরুণী। হতাশ সেরেনাকে গিয়ে জড়িয়ে ধরেন আন্দ্রেসকু।

আরও পড়ুন: চেলসিকে চার গোল দিয়ে প্রিমিয়র লিগ অভিযান শুরু করল ম্যান ইউ

ম্যাচ শেষের পর রজার্স কাপের নতুন রানি জানান, ‘সেরেনাকে কাঁদতে দেখে আমিও নিজেকে সামলাতে পারিনি। আমি ওর যন্ত্রণাটা অনুভব করতে পারছি।’ একইসঙ্গে সেরেনাকে তিনি ‘বিস্ট’ বলে সম্বোধন করেছেন বলে জানান আন্দ্রেসকু। অন্যদিকে প্রতিদ্বন্দ্বীর সৌজন্যে মুগ্ধ সেরেনা ম্যাচ শেষে বলেন, ‘আমি প্রচন্ডই হতাশ হয়ে পড়েছিলাম কিন্তু ওর ব্যবহার আমাকে খুব আনন্দ দিয়েছে।’ সেরেনার সংযোজন, ‘কোর্টে হোক কিংবা কোর্টের বাইরে ওর ব্যবহার দেখে কখনোই মনে হয়নি ও মাত্র ১৯।’

আরও পড়ুন: ভুবনেশ্বরের দাপটে ওয়ান ডে সিরিজে এগল ভারত

তবে সেরেনাকে ম্যাচ ছাড়তে হলেও পুরুষদের সিঙ্গলসে প্রত্যাশিত ভাবেই চ্যাম্পিয়ন হলেন রাফায়েল নাদাল। মন্ট্রিয়ালে বিগ ফাইনালে এদিন কেরিয়ারের প্রথম সাক্ষাতে রাশিয়ান প্রতিদ্বন্দ্বী ড্যানিল মেদভেদেভকে স্ট্রেট সেটে উড়িয়ে দিয়ে খেতাব ধরে রাখলেন স্প্যানিয়ার্ড। নাদালের পক্ষে ম্যাচের ফল ৬-৩, ৬-০। তবে রজার্স কাপ জিতে উঠে আসন্ন সিনিসিনাটি ওপেন থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিলেন ১৭টি গ্র্যান্ডস্লামের মালিক। কারণ হিসেবে নাদাল জানিয়েছেন, ২৬ অগাস্ট থেকে শুরু হতে চলা যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের প্রস্তুতি নিতে চান তিনি। রজার্স কাপ জয়ের আত্মবিশ্বাসকে সঙ্গী করেই নিউ ইয়র্কে পা রাখবেন তিনি।