ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা, মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো, রাজ্যে গণতন্ত্র লুঠ-সহ একাধিক অভিযোগ তুলে নবান্ন অভিযানের ডাক দিল যুব মোর্চা। রবিবার যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ জানালেন, সেপ্টেম্বরের শেষে নবান্ন অভিযান করবেন তাঁরা।

৪ সেপ্টেম্বরের পর অভিযানের দিনক্ষণ ঠিক হওয়ার কথা। বিধানসভা নির্বাচনের আগে বাংলার মাটিতে নিজেদের জমি শক্ত করতে দলের প্রত্যেক সংগঠনকে সমানভাবে কাজে নামাচ্ছে গেরুয়া শিবির। ক্রমশ সক্রিয় করে তোলা হচ্ছে যুব মোর্চাকেও। উল্লেখ্য, যুবর সভাপতি হওয়ার পরই নেড়া হয়ে বিষ্ণুপুরের মন্দিরে পুজো দিয়ে রাজ্যের যুব মোর্চা সদস্যদের হাতে ত্রিশূল তুলে দিয়েছিলেন সৌমিত্র খাঁ।

রাজনৈতিক আক্রমণ থেকে আত্মরক্ষায় এত ত্রিশূল বিলি বলে জানিয়েছিলেন তিনি। এমনকি সংগঠনের কর্মী-সমর্থকদের বাড়িতে বাড়িতে ত্রিশুল রাখারও আবেদনও জানান বিজেপি যুব সৌমিত্র খাঁ। শুরু হয়েছে বিতর্ক। কিন্তু সেইসব বিতর্ককে পাত্তা না দিয়ে এবার নবান্ন অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি।

নবান্ন অভিযানের ডাক দেওয়া হবে বলে জানিয়ে দেন সৌমিত্র খাঁ। তিনি বলেন, “আগামী এক মাসের মধ্যে রাজ্যব্যাপী ১ লক্ষ সভা করবে যুব মোর্চা। সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে নবান্ন চলো-র ডাক দেওয়া হবে। অন্যদিকে গত কয়েকদিন আগেই যুব মোর্চার নতুন রাজ্য কমিটি ঘোষণা করেন সৌমিত্র খাঁ।

নতুন কমিটিতে যুব মোর্চার রাজ্য সহ সভাপতি পদে রাখা হয়েছে যাবদপুর লোকসভার বিজেপি প্রার্থী অনুপম হাজরাকে। ৬ জন সহসভাপতি, দুজন সাধারণ সম্পাদক, ৫ জন সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বনাম যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খাঁয়ের মধ্যে অন্তর্দ্বন্দ্ব অন্যমাত্রা নিয়েছে জেলা যুব সভাপতি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে। দুজনের দ্বন্দ্ব ফের মুকুল বনাম দিলীপ লড়াইয়ের ইঙ্গিত দিয়েছে বিজেপিতে।

অন্যদিকে, বিজেপির এহেন কর্মসূচি ঘিরে ব্যাপক বিক্ষোভ হতে পারে। যার ফলে তীব্র যানজটের আশঙ্কা রয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.