মুম্বই: সোমবারের পর মঙ্গলবারেও শেয়ার সূচক ঊর্ধ্বমুখী। দিনের শেষে বিএসই সেনসেক্স ৪৪৭ পয়েন্ট উপরে উঠে মঙ্গলবার ফের ৫০হাজার ছাড়িয়েছে। অটো ব্যাংকিং এবং তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা শেয়ার কেনার হিড়িক ঠেলে তুলেছে শেয়ার সূচককে। বিএসই সেনসেক্স এদিন প্রায় ৬৩৩ পয়েন্ট উঠানামা করেছে। দিনের শেষে সেনসেক্স ৪৪৭.০৫ পয়েন্ট বা ০.৯০ শতাংশ বেড়ে অবস্থান করছে ৫০,২৯৬.৮৯ পয়েন্টে। একইরকম ভাবে এনএসই নিফটি ১৫৭.৫৫ পয়েন্ট বা ১.০৭ শতাংশ বেড়ে অবস্থান করছে ১৪,৯১৯.১০ পয়েন্টে।

সেনসেক্সে থাকা শেয়ারগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য ভাবে বৃদ্ধি ঘটেছে মহিন্দ্র অ্যান্ড মহিন্দ্র, এনটিপিসি ,বাজাজ অটো, টেক মাহিন্দ্রা, টিসিএস এবং মারুতি। অন্যদিকে শেয়ারের দাম কমে যেতে দেখা গিয়েছে সেগুলির মধ্যে রয়েছে-ওএনজিসি, এইচডিএফসি, ডক্তর রেড্ডি, পাওয়ার গ্রিড এবং এসবিআই। সেনসেক্সে থাকা ২৫টি শেয়ারের দাম এদিন বেড়েছে।

বাজার বিশেষজ্ঞদের অভিমত, বিনিয়োগকারীদের সেন্টিমেন্ট ইতিবাচক রয়েছে কারণ চলতি অর্থবছরের তৃতীয়ত ত্রৈমাসিকে জিডিপি উৎসাহ ব্যঞ্জক তথ্য এসেছে। তাছাড়া বিশ্বজুড়ে বন্ড বাজার ঘিরে যেরকম উত্তেজনা দেখা গিয়েছিল সেটা অনেকটা শান্ত হয়েছে। গতকালের পর এদিনও এশিয়া শেয়ারবাজার বেশ ঊর্ধ্বমুখী ছিল। অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে টাকার দাম ১৮ পয়সা বেড়েছে ফলে মঙ্গলবার এক ডলারের বিনিময় মূল্য হয় ৭৩.৩৭ টাকা।

শেয়ারবাজারে ওঠানামা চলছে । গত শুক্রবার শেয়ার বাজারে বড় পতন লক্ষ্য করা গিয়েছিল ৷ সেদিন ১৯৩৯.৩২ পয়েন্ট বা ৩.৮০ শতাংশ পতন হতে দেখা যায় ৷ যা ছিল গত চার বছরে সর্বচেয়ে বড় পতন৷ অন্যদিকে নিফটি পড়েছিল ৫৬৮.২০ পয়েন্ট,যা গত বছরের ২৩ মার্চের পর সবচেয়ে বড় পতন ৷ শুক্রবার দিন বিদেশি প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা ৮২৯৫.১৯ কোটি টাকা শেয়ার বেচে দিয়েছিল৷ এরপরে সোমবারে ফের শেয়ার বাজার ঘুরে দাঁড়াল৷ সপ্তাহের শুরুতেই বিএসই সেনসেক্স এবং এনএসই নিফটি দুই সূচকেই উঠতে দেখা গেল ৷ এর কারণ হল দুটি পর পর ত্রৈমাসিকে সংকোচনের পর আবার দেশের অর্থনীতির বৃদ্ধি হতে দেখা গিয়েছে ৷ ফলে লগ্নিকারীদের মধ্যে উত্ফুল্ল দেখা যায়৷ বিএসই সেনসেক্স সোমবার  ৭৪৯.৮৫ পয়েন্টে বেড়ে ছিল।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.