শ্রীনগর: ২০১৬-র ৮ জুলাই ভারতীয় সেনার সঙ্গে গুলির লড়াইয়ে মৃ্ত্যু হয়েছিল হিজবুল কমান্ডর বুরহান ওয়ানির৷ তারপর থেকেই উত্তপ্ত কাশ্মীর৷ রক্তপাত, সেনার সঙ্গে ছায়াযুদ্ধ, ইট বৃষ্টি, বনধ, থানায় হামলা হয়ে উঠেছে কাশ্মীরের রোজকার ঘটনা৷ পাক অর্থে কাশ্মীরি যুবকদের সন্ত্রাসী কাজ করতে উদ্বুদ্ধ করে চলেছে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন গুলি৷ কেন্দ্রের মোদী সরকার ও রাজ্যর মেহবুবা মুফতির সরকারের পক্ষ থেকে বারবার শান্তির কথা বলা হলেও কোন কাজ হয়নি৷

এবার উদ্যোগ নিল শীর্ষ বিজেপি নেতা তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী যশবন্ত সিনহা৷ বৃহস্পতিবার সকালে সিনহা সহ কনসার্ন সিটিজেন গ্রুপের মেম্বাররা একত্রে সাক্ষাৎ করেন জম্মু-কাশ্মীরেরে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা ন্যাশনাল কন্ফারেন্স প্রধান ওমর আবদুল্লার সঙ্গে৷ কাশ্মীরে কেমন ভাবে শান্তি প্রতিষ্ঠা করা উত্তপ্ত কাশ্মীর উপত্যকায় তা নিয়ে আলোচনা করেন দুই নেতা৷ এর আগে কুপওয়ারাতে গিয়ে উপত্যকার বেশ কিছু শিক্ষিত নাগরিক সমাজের মানুষের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন যশবন্ত সিনহা৷

বুধবার শ্রীনগরে পৌঁছে জম্মু-কাশ্মীরের বেশ কিছু উত্তপ্ত অঞ্চলে গিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলেন যশবন্তের নেতৃত্বে একটি দল৷ দলে ছিলেন প্রাক্তন এয়ার ভাইস মার্শল কপিল কাক, ক্যাচ নিউজের সম্পাদক ভারত ভূষণ ও সুশোভা ব্রেভ৷ গত বছরের অক্টোবরেও একই ভাবে শান্তি প্রতিষ্ঠায় উদ্যোগ নিয়েছিলেন যশবন্তের নেতৃত্বাধীন কনসার্ন সিটিজেন গ্রুপ৷ কিন্তু তারপরেও কোনও কাজ হয়নি৷ এবার দেখার এক্ষেত্রে কি হয়৷