আহমেদাবাদ: সেলফ-স্টাইল্ড গডম্যান ধর্ষণে অভিযুক্ত স্বামী নিত্যানন্দ পলাতক। তার বিরুদ্ধে আমেদাবাদে নিত্যানন্দের আশ্রমে অবৈধভাবে শিশুদের ধরে রেখে সেখানে যৌন অত্যাচার চালানোর অভিযোগ রয়েছে। পাশাপাশি ধর্ষণ ও শিশু অপহরণের অভিযোগও। এই পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন তিনি। গুজরাত পুলিশ শুক্রবার সকালে জানিয়েছে স্বামী নিত্যানন্দের খোঁজে বিদেশমন্ত্রকের সাহায্য নেওয়া হয়েছে, সারাক্ষণ যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

এই বিষয়ে একটি সংবাদসংস্থা বিদেশমন্ত্রককে যোগাযোগ করলে উত্তরে জানা গিয়েছে, স্বঘোষিত গডম্যানের দেশ ছাড়ার বিষয়ে ফরম্যাল কোনও তথ্য তাঁদের কাছে ছিল না। তবে নিত্যানন্দ এখন কোথায় আছেন সেবিষয়ে কেন্দ্রের তরফে খোঁজ, তল্লাশির চেষ্টা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। যদি নিত্যানন্দ দেশের বাইরেও চলে যান, তাহলেও নির্দিষ্ট আইন অনুযায়ী স্বঘোষিত ধর্মগুরুকে হেফাজতে নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, নিত্যানন্দের দুই শিষ্যকে গতকালই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাঁদের বিরুদ্ধে শিশু অপহরণ ও অবৈধভাবে শিশুদের আটক করার অভিযোগ রয়েছে। উল্লেখ্য, শুধু শিশুঅবহরণই নয়, নিত্যানন্দের আশ্রম থেকে ২ জন মহিলার উধাও হওয়ার ঘটনার জেরেও পুলিশি তদন্ত শুরু হয়। আর তারপরই নিত্যানন্দের ২ শিষ্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জানা যাচ্ছে, এরপরই দেশ ছেড়ে চলে গিয়েছেন স্বঘোষিত এই ধর্মগুরু।

স্বঘোষিত গডম্যান স্বামী নিত্যানন্দের আশ্রমে তাঁদের দুই মেয়েকে আটকে রাখার অভিযোগ করেছিলেন এক দম্পতি। সোমবার নিত্যানন্দের বিরুদ্ধে গুজরাত হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন জনার্দন শর্মা ও তাঁর স্ত্রী। বেআইনি ভাবে জোর করে দুই কিশোরী কন্যাকে নিত্যানন্দের আশ্রমে আটকে রাখা হয়েছে বলে তারা অভিযোগ জানিয়েছিলেন।

২০১৩ সালে স্বামী নিত্যানন্দ পরিচালিত বেঙ্গালুরুর একটি শিক্ষামূলক প্রতিষ্ঠানে নিজের চার মেয়েকে ভর্তি করান অমদাবাদের বাসিন্দা জনার্দন শর্মা। সম্প্রতি তাঁরা জানতে পারেন যে চার মেয়েকেই নিত্যানন্দ ধ্যানপীঠমের অন্য একটি শাখায় সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। অমদাবাদের দিল্লি পাবলিক স্কুলের ক্যাম্পাসেই এই আশ্রমটি রয়েছে। সেখানে গিয়ে মেয়েদের সঙ্গে দেখা করতে চাইলে জনার্দন ও তাঁর স্ত্রীকে তাড়িয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ।

এর পরে পুলিশের সাহায্যে ফের ওই আশ্রমে যান জনার্দন। সেবার নাবালিকা দুই মেয়েকে ফিরিয়ে নিয়ে আসতে পারলেও ২১ ও ১৮ বছরের বড় ও মেজ মেয়ে তাঁদের সঙ্গে ফিরতে চান না বলে খবর। বড় দুই মেয়েকে অপহরণ করে আটকে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন জনার্দন শর্মা। এর আগেও ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে স্বামী নিত্যানন্দের বিরুদ্ধে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ