কলকাতা২৪x৭: সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখলেন মন ভালো লাগছে না। দিনটাই কেমন মনমরা লাগছে। এমনটা হামেশাই হয় আমাদের। তখন মুড অফ থাকে। সেইসময় দরকার আরো বেশি করে নিজেকে ভালোবাসা। কারণ এতে আপনি ভালো অনুভব করবেন। নিজের যত্ন নেওয়া খুবই দরকার জীবনে।

শরীর ও মনের যত্ন দুটোই নেওয়া অত্যন্ত দরকার। শুধু আপনি অসুস্থ থাকলেই নিজের খেয়াল রাখতে হবে এমন কথা নেই। তবে নিজের যত্ন নেওয়ার সময় আমরা খুব কম পাই। পরিবার, কাজ, সন্তান সব সামলে দিনের শেষে যে সময় পাই সেটাই নিজের সময়। তবে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কিছুটা নিজেকে দিন।

সপ্তাহ শেষে যান ঘুরতে। কাছাকাছি কোথাও একা বা কাউকে নিয়ে সকালে বেরিয়ে যান। আবার সন্ধের মধ্যে বাড়ি ফিরে আসুন। মনটা ফ্রেশ লাগবে। বই ভালো সঙ্গী। তাই যে কোনো গল্প বা কবিতা পড়ুন। নিজেও লেখার চেষ্টা করুন কিছু। বন্ধুদের নিয়ে যেতে পারেন আড্ডায়। বাড়িতেই আয়োজন করতে পারেন আবার বাইরে কোথাও যেতে পারেন। মনখোলা হাসিতে কাটুক সেইদিন।

রোজ সকালে শরীর চর্চা বা ব্যায়াম করুন। সারাদিনের কাজের শক্তি পাবেন। আবার আজকাল কেক বেকিং এর চাহিদা খুব বেড়েছে। নেট ঘেঁটে বানাতে পারেন আপনিও। বা সময় করে ক্লাস করতে পারেন। নিজের মনের মত করে নিজের জন্যে বা অন্য কারুর জন্যেও বানাতে পারেন কেক।

ঘর গোছানো খুব বড় কাজ। আর ঘর গোছাতে গিয়ে মাঝে মাঝে পাওয়া যায় এমন কিছু স্মৃতি যা সত্যিই মনকে জাগিয়ে তোলে আবার। আলমারি বা আসবাব পরিষ্কার করুন বা সেগুলোকে অন্যভাবে অন্য জায়গায় রাখুন। দেখবেন বাড়ির শোভা যেমন পাল্টাবে আপনার মনও আনন্দে নেচে উঠবে।

নিজের জন্যে কিনতে পারেন উপহার। কাছাকাছি দোকানে গিয়ে কিছু কিনলেন যা আপনার ভালো লাগে। এতেও একটা সার্থকতা খুঁজে পাবেন। বাড়িতে কিংবা পার্লারে গিয়ে স্পা করতে পারেন। এতে শরীর ও মনে শান্তি আসবে। ব্যাথা থেকে মিলবে মুক্তি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.