নয়াদিল্লি: প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির প্রয়াণে শোকস্তব্ধ সারা দেশ। প্রখ্যাত আইনজীবী ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের পাশাপাশি তিনি ছিলেন ক্রিকেট প্রশাসক৷ দিল্লি ও ডিস্ট্রিক্ট ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্টের পাশাপাশি ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের ভাইস-প্রেসিডেন্টের পদও সামলেছিলেন জেটলি৷ তাঁর মৃত্যুকে গভীর শোকাহত টিম ইন্ডিয়ার দুই ওপেনার বীরন্দ্রে সেহওয়াগ ও গৌতম গম্ভীর৷

শনিবার সকালে দিল্লির এইমসে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন জেটলি৷ মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর৷ শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে গত ৯ অগস্ট দিল্লির এইমসে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। ক্রমশ অবস্থার অবনতি হওয়ায় লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল প্রাক্তন কেন্ত্রীয় অর্থমন্ত্রীকে। চিকিৎসকদের একটি দল সর্বক্ষণ নজর রেখেছিলেন তাঁর উপর। কিন্তু এদিন দুপুর ১২টা ৭ মিনিটে জীবনের লড়াইয়ে হার মানে দুঁদে রাজনীতিবিদ তথা ক্রিকেট প্রশাসক৷

জেটলির সঙ্গে তাঁর ব্যক্তিগত সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে সেহওয়াগ টুইটারে লেখেন, ‘অরুণজি’র মৃত্যুতে আমি অত্যন্ত মর্মাহত৷ জনসেবার পাশাপাশি দিল্লির অনেক ক্রিকেটারের জীবনে দারুণ প্রভাব ছিল জেটলির৷ একটা সময় ছিল, যখন দিল্লি থেকে খুব ক্রিকেটার জাতীয় দলের হয়ে খেলার সুযোগ পেত৷ কিন্তু তাঁর নেতৃত্বে ডিডিএস থেকে অনেক ক্রিকেটার ভারতীয় দলে খেলার সুযোগ পায়৷ ওনার পরিবার ও প্রিয়জনদের প্রতি আমি সমবেদনা জানায়৷’

টিম ইন্ডিয়ার আর এক ওপেনার তথা দিল্লির প্রাক্তন ক্যাপ্টেন গম্ভীর টুইটারে লেখেন, ‘A father teaches u to speak but a father figure teaches u to talk. A father teaches u to walk but a father figure teaches u to march on. A father gives u a name but a father figure gives u an identity. A part of me is gone with my Father Figure Shri Arun Jaitley Ji. RIP Sir.

দিল্লি ক্রিকেটের মসনদে ১৪ বছর রাজত্ব করেছিলেন জেটলি৷ ১৯৯৯ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত দিল্লি ও ডিস্ট্রিক্ট ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ছিলেন তিনি৷ এছাড়াও বিসিসিআই-এর ভাইস-প্রেসিডেন্টের পদও সামলেছেন জেটলি৷ ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড থেকে নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসনের বিদায় পর জগমোহন ডালমিয়াকে সঙ্গে নিয়ে বিসিসিআই-এর হাল ধরেছিলেন তিনি৷ এক সময় বিসিসিআই-এর প্রেসিডেন্ট হওয়ার দৌড়ে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছিলেন এই দুঁদে আইনজীবী৷ কিন্তু ২০১৪ সালে বিজেপি সরকার কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার পর নরেন্দ্র মোদীর মন্ত্রীসভায় গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হন জেটলি৷ অর্থমন্ত্রকের দায়িত্ব পান তিনি৷ ফলে ক্রিকেট প্রশাসক থেকে ক্রমশ দূরে সরে আসেন জেটলি৷

জেটলির প্রয়াণে শোক প্রকাশ করে প্রাক্তন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট অনুরাগ ঠাকুর টুইটারে লেখেন, ‘arunjaitley Ji ws a fatherly figure to me for over 2 decades. Today I have lost the voice tht ws my conscience,mentor & motivator. I held his hand as I entered public life & the shoulder I leaned on when in doubt; he taught me the greatest lessons in leadership & humility.

দীর্ঘ দিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন জেটলি। অর্থমন্ত্রী থাকাকালীন গতবছর কিডনি প্রতিস্থাপনও হয় তাঁর। ফলে ফেব্রুয়ারি মাসে অন্তর্বর্তী বাজেটের সময় সংসদে উপস্থিত থাকতে পারেননি তিনি। গুরুতর অসুস্থ হয়ে এর আগেও এইমসে ভর্তি হয়েছিলেন জেটলি। তখন থেকেই আর সক্রিয় রাজনীতিতে দেখা যায়নি তাঁকে। চলতি বছর লোকসভা নির্বাচনে মোদী দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় ফিরলেও, মন্ত্রিত্ব নিতে রাজি হননি জেটলি।