বেঙ্গালুরু: দীর্ঘ প্রচেষ্টার পরও চন্দ্রযানের ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে এখনও কাজ করছে ভারতের দ্বিতীয় চন্দ্রযানের অরবিটার।

শুক্রবার সেই চন্দ্রযান- ২-এর ক্যামেরায় তোলা চাঁদের এক্সক্লুসিভ ছবি শেয়ার করল ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা, ইসরো। চন্দ্রপৃষ্ঠের ক্লোজ-আপ ছবি পাঠানো হয়েছে। ইসরোর অফিশিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে ছবিগুলি পোস্ট করা হয়েছে ইতিমধ্যেই।

অরবিটারের হাই রেজোলিউশন ক্যামেরায় ১০০ কিলোমিটার উচ্চতা থেকে তোলা হয়েছে এই ছবিগুলি। সেখানে দেখা যাচ্ছে, চন্দ্রপৃষ্ঠে যত্রতত্র পড়ে থাকা একাধিক ছোটবড় পাথর।

ইসরোর তরফ থেকে বলা হয়েছে, এই প্রথম কোনও অরবিটার থেকে চাঁদের এত স্পষ্ট ছবি তোলা সম্ভব হল।

ইসরো সূত্রে খবর, আগামী এক বছরে চন্দ্রযান-২’র অরবিটারের মাধ্যমে চন্দ্রপৃষ্ঠের ছবি তোলা হবে। তার মাধ্যমে চাঁদের পৃষ্ঠের উন্নত মানের ছবি পৌঁছবে ইসরোর বিজ্ঞানীদের হাতে। শুধু তাই নয়, ল্যান্ডার বিক্রমের বিষয়ে খোঁজও করা যাবে চন্দ্রযান-২-এর অরবিটারের সাহায্যে।

চলতি বছর ২২ জুলাই উৎক্ষেপণ হয় চন্দ্রযান ২। একের পর এক ধাপ পার করে প্রত্যাশা তৈরি করেছে। ইসরোর অভিযানের তাকিয়ে দিকে ছিল শুধু ভারত নয়, গোটা বিশ্ব। শুধুমাত্র চাঁদের একটা অঞ্চল নয়, বরং ভূপৃষ্ঠ ও আবহাওয়া পর্যালোচনা করা হবে একটাই অভিযানে।

অরবিটারের ক্যামেরাটি হাই রেজলুশনের (০.৩এম)। চন্দ্র অভিযানে এর আগে কেউ এমন শক্তিশালী ক্যামেরা ব্যবহার করেনি। ল্যান্ডার বিক্রমের অবতরণে আধুনিক প্রযুক্তি ও সেন্সরের সাহায্য নেওয়া হয়েছে। অভিযানের প্রতিটি ধাপের পর্যালোচনা করেছে ইসরো। কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যের ৯০ থেকে ৯৫ শতাংশ সম্পূর্ণ হয়েছে। চন্দ্র বিজ্ঞানের উন্নতিতে ব্যাপক সাহায্য করবে।

চন্দ্রযান-২-এর জন্য খরচ হয়েছে প্রায় ৯৮৩ কোটি টাকা। আপাতদৃষ্টিতে টাকার অঙ্ক অনেকটা বেশি মনে হলেও, অন্যান্য দেশের তুলনায় এই অঙ্ক নেহাতই কম। একই ধরনের অভিযানে প্রায় দশ গুণ বেশি খরচ করে থাকে বিভিন্ন দেশের মহাকাশ সংস্থা।