জয়পুর: ১১ লাখ টাকা পণ ফিরিয়ে দিয়ে দেশবাসীর মন জিতলেন রাজস্থানের এক সেনা জওয়ান। শ্বশুরবাড়ি থেকে পণ হিসেবে দিতে চাওয়া মোটা টাকা ফিরিয়ে দিয়ে বিয়েতে তিনি নিলেন মাত্র ১১ টাকা এবং ১টা নারকেল। সেনা জওয়ানের এই মহৎ মনের পরিচয়ে আপ্লূত দেশবাসী।

এবছরের ৮ নভেম্বর জয়পুরে বিয়ে করতে গিয়েছিলেন জিতেন্দ্র সিং নামে ওই জওয়ান। বিয়েতে তাঁকে ১১ লক্ষ টাকা পণ হিসেবে দিতে চান পাত্রীর বাবা গোবিন্দ সিংহ। কিন্তু হাত জোড় করে জিতেন্দ্র সেই টাকা নিতে অস্বীকার করেন। কিন্তু এরপরে জিতেন্দ্র যা বলেন, তাতে আনন্দে চোখে জল এসে যায় গোবিন্দ সিংহের।

জিতেন্দ্র বলেন, তাঁর স্ত্রী রাজস্থান জুডিশিয়াল সার্ভিস পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। সে যদি ম্যাজিস্ট্রেট হতে পারে তবে সেটা তাঁর পরিবারের জন্য টাকার থেকে অনেক বেশি গর্বের। জিতেন্দ্রের বউ এলএলবি ও এলএলএম পাশ করে এখন পিএইচডি করছে।

আরও পড়ুন – তিনটি সিদ্ধ ডিমের দাম ১৬৭২, বিল দেখেই চোখ কপালে

জিতেন্দ্র যখন পণ নিতে অস্বীকার করেন, তখন পাত্রীর বাবা গোবিন্দ সিং রীতিমতো চমকে যান। তিনি মনে করেন, তাঁর আয়োজনে কোনও ত্রুটি হয়েছে। কিন্তু পরে যখন তিনি বুঝতে পারেন যে পাত্র জিতেন্দ্র পণ প্রথার ঘোরতর বিরোধী তখন আনন্দে ভাসেন তিনি।

সমাজে পণ নেওয়া আইনত দণ্ডনীয় হলেও এখনও যে দেশের বিভিন্ন এলাকায় এই প্রথা বেশ রমরমিয়ে চলছে ফের একবার চোখে আঙুল দিয়ে দেখাল এই প্রথা। পাত্র অনেক সময় পণ নিতে না চাইলেও আগে থেকে তাঁদের হাতে পণ ধরিয়ে দেন পাত্রীর পরিবার।

জিতেন্দ্রের এই কাজে দারুণ খুশি দেশবাসী। পাশাপাশি সেনাবাহিনীর জওয়ানরাও জিতেন্দ্রের এই কাজে দারুণ গর্ব অনুভব করছেন। জওয়ানরা সীমান্ত রক্ষা করে যে শুধুমাত্র বিদেশি শত্রুর হাত থেকে দেশকে রক্ষা করেন তাই নন, দেশের ভেতরের কু-প্রথাকেও বিনষ্ট করেন জওয়ানরা। আরও একবার সেই প্রমাণই দিলেন জিতেন্দ্র সিং।