মুম্বই: ভারতীয় জীবন বিমা নিগম (এলআইসি)-এর আইডিবি ব্যাংক অধিগ্রহণের ফলে অনিচ্ছাকৃত পরিণতির মুখে পড়তে হচ্ছে ৷ বাজার নিয়ন্ত্রক সিকিউরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অফ ইন্ডিয়া (সেবি) আংশিকভাবে ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে এলআইসির ভোটাধিকার বন্ধ করল৷ এর কারণ হল ট্রেডিং মেম্বারের পাঁচ শতাংশ শেয়ারহোল্ডিং সীমাবদ্ধ রাখা হবে ৷ আবার এলআইসি ট্রেডিং মেম্বার নয় কিন্তু আইডিবিআই ব্যাংকে ( যে এনএসই-র ট্রেডিং মেম্বার) অধিগ্রহণ করায় তা ‘ডিমড মেম্বার’ বলে গণ্য হবে৷

সেবির নিয়মানুসারে একজন ট্রেডিং মেম্বার প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে স্টক এক্সচেঞ্জের ৫ শতাংশের বেশি শেয়ারের মালিক হলে তা থেকে ছাড় মেলে৷ ট্রেডিং মেম্বার হল সেই সংস্থা যার মাধ্যমে ওই স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন হবে ৷
এই বছরের প্রথম দিকে এলআইসি সরকারের কাছ থেকে আইডিবিআই ব্যাংকের ৫১ শতাংশ শেয়ার কিনে নেয়৷ এই অধিগ্রহণের পরে এনএসই নতুন করে এলআইসি-র শ্রেনীবন্যাস করে ৷ তারফলে আগে থাকা ‘পাবলিক শেয়ারহোল্ডিং ’ থেকে অ্যাসোসিয়েট ট্রেডিং মেম্বারে পরিণত হয়৷

এলআইসি বর্তমানে এনএসই-র ১২.৫১ শতাংশ শেয়ারের মালিক যেখানে আইডিবিআই ব্যাংক এবং তার অধীনস্ত আইডিবিআই ট্রাস্টিশিপ সার্ভিসের রয়েছে ১.৪৫ শতাংশ মালিকানা যারফলে মোট মালিকানা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১৩.৯৬ শতাংশ ৷

সেবির নিময় মানতে হলে এই পরিস্থিতিতে হয় এলআইসি-কে এনএসই-র শেয়ার ছেড়ে দিতে হবে অথবা আইডিবিআই ব্যাংক যেন তার ট্রেডিং মেম্বারের লাইসেন্স সারেন্ডার করে৷