তমলুক: জলোচ্ছ্বাসের কোনও পূর্বাভাস না থাকায়,পর্যটকরা দীঘার সমুদ্র সৈকতে জড়ো হয়েছিলেন৷ বৃহস্পতিবার বিকালের জলোচ্ছ্বাসে পর্যটকরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন৷ পুলিশ এসে তাদেরকে সমুদ্র সৈকত থেকে সরিয়ে দেন৷

১২ ডিসেম্বরের অর্থাৎ গতরাত মধ্যরাত থেকে শুরু হয়েছে পূর্ণিমা৷ এই সময় ভরা কোটালে জলোচ্ছ্বাস হয়৷ তলে সেটা যে এতটা প্রবল হবে,তা কারও জানা ছিল না৷ জলোচ্ছ্বাসের সময় জলরাশি গার্ডওয়ালে এসে ধাক্কা মারে৷ যদিও জলের তোড়ে ভেসে যাওয়ার এখনও কোনও খবর নেই৷

জলোচ্ছ্বাসের খবর পেয়েই দীঘার সমুদ্র সৈকতে ছুটে আসেন পুলিশ৷ তারা মাইকিং করে সবাইকে সতর্ক করেন৷ এবং সমুদ্র সৈকত থেকে পর্যটকদের সরিয়ে দেন৷ গার্ডওয়ালের ধারেকাছে পর্যটকদের ঘেঁষতে দেওয়া হচ্ছে না৷ বিশেষ করে ভাটার সময় পর্যটকরা সমুদ্রে নামার অনুমতি পান৷ কিন্তু জোয়ারের সময় সমুদ্রে না নামার পরামর্শ দিয়ে থাকে প্রশাসন৷

যদিও দীঘার প্রতিটি ঘাটে নুলিয়া এবং পুলিশ বাঁশি মুখে নিয়ে সব সময় কিছু পুলিশ প্রস্তুত থাকে৷ কারণ নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই কেউ কেউ ভরা সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাসকে সামনে রেখে সেল্ফি তোলার জন্য গার্ডওয়াল টপকানোর চেষ্টা করেন৷ যাতে সেটা কেউ না করতে পারে তার দিকে নজরে রাখে প্রশাসন৷