ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, ক্যানিং: চুরি করা স্কুটি ফেরত দিয়ে গেল চোর। আশ্চর্যজনক ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার ক্যানিং বাজারে। জানা গিয়েছে,গত শুক্রবার সকালে স্কুটি নিয়ে ওষুধ কিনতে ক্যানিং বাজারে গিয়েছিলেন মাতলা ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের নোনাঘেরীর বাসিন্দা সত্য ঘোড়ুই।

বাজারের একটি ওষুধের দোকানের সামনে গাড়ি রেখে ওষুধ কিনছিলেন। কিন্তু সেই দোকানে একটি ওষুধ না পেয়ে পাশের একটি দোকানে যান তিনি। মিনিট খানেকের মধ্যে ফিরে এলে তাঁর চক্ষু চড়কগাছ হয়ে যায়। তিনি দেখেন তাঁর স্কুটি নেই। বহু খোঁজাখুঁজির পরও স্কুটি না পেয়ে হতাশ হয়ে বাড়িতে ফিরে আসেন তিনি।

পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় গাড়ি চুরির ঘটনাটি জানিয়ে একটি পোষ্টও করেন। এবং ক্যানিং থানায় একটি অভিযোগও দায়ের করেন।

এরপরই শনিবার সকালে সত্য বাবুর এক আত্মীয়ের ফোনে অপরিচিত নম্বর থেকে একটি ফোন আসে। ফোনে জানানো হয় ক্যানিং মাছ বাজার সংলগ্ন এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের পার্টি অফিসের সামনে রাস্তার উপর চুরি যাওয়া গাড়িটি দাঁড় করানো রয়েছে।

আচমকা এমন খবর পেয়েই তড়িঘড়ি সেই নির্দিষ্ট স্থানে যান সত্যবাবু। সেখানে গিয়ে দেখতে পান তাঁর চুরি যাওয়া স্কুটিটি রাস্তার উপর দাঁড় করানো রয়েছে।

চুরি যাওয়া গাড়ি ফেরত পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে যান সত্য। কিন্তু এখনও চোরের কোনও খবর পাওয়া যায়নি। সে অন্তরালেই থেকে গিয়েছে।

ক্যানিং থানার এক পুলিশ অফিসার মজা করে বলেন, “চোরেদের এমন বোধদয় হলে তো আমাদের কাজ অনেক কমে যাবে।” তবে পুলিশ মনে করছে, সত্যবাবুর চেনা-পরিচিতদের মধ্যে কেউ মজা করে কাজটি করেছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.