ওয়াশিংটন: তবে কি এই মহাকাশে মানুষ ছাড়াও আরও উন্নত প্রাণী রয়েছে? এবার একটি বুদ্ধিমান এলিয়েন সভ্যতার শক্ত প্রমাণ পেলেন আমেরিকান বিজ্ঞানীরা। আমেরিকান বিজ্ঞানীরা মহাকাশে একটি বুদ্ধিমান এলিয়েন সভ্যতার পাঠানো কোটি কোটি সংকেত আবিষ্কার করেছেন।

বৈজ্ঞানিকরা জানাচ্ছেন, আমাদের সভ্যতার প্রযুক্তি অনুসারে এই সংকেত মহাকাশ থেকে আসছে। যদিও আমাদের বর্তমান প্রযুক্তি সেই সংকেত কতটা বুঝতে পারে বা তা ডিকোড করতে সক্ষম তা নিয়ে কিছুটা ধন্দ রয়েছে। ফলে এই কাজে সময় লাগবে।

মার্কিন বিজ্ঞানীরা এই এলিয়েন সংকেতের নাম দিয়েছেন টেকনোসাইনচার। এগুলি একটি বিশেষ ধরণের রেডিও তরঙ্গদৈর্ঘ্য। লস অ্যাঞ্জেলেস-ভিত্তিক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যালিফোর্নিয়ার জ্যোতির্বিজ্ঞানী জিন লুক মারগোট জানিয়েছেন, “আমরা অনেক আলোকবর্ষ দূরের সভ্যতা থেকে আগত রেডিও তরঙ্গদৈর্ঘ্যের প্রযুক্তিগুলি সন্ধান করতে সক্ষম হয়েছি।”

আরও পড়ুন – মানব শরীরে ৯০ শতাংশ কাজ করবে অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন : অ্যাস্ট্রাজেনেকা

জিন লুক জানিয়েছেন, “যে সংকেতগুলি আসছে তা ধরতে এবং সেগুলি ডিকোড করার জন্য আমাদের আরও শক্তিশালী প্রযুক্তি প্রয়োজন।” তিনি বলেছেন আমরা সংকেত তো পাচ্ছি, কিন্তু সেগুলি ডিকোড করতে পারছি না।

বলা হচ্ছে, এই সিগন্যাল বা সংকেতগুলি মহাকাশ থেকে আসছে। এবার প্রশ্ন হল, এলিয়ানেরাও কি আমাদের খুঁজছে? অর্থাৎ পৃথিবীবাসীরা যেমন নতুন গ্রহে এলিয়ান খুঁজছে, তেমন অন্য গ্রহেরাও জীব অর্থাৎ এলিয়ানরাও কি আমাদের খুঁজছে?

জিন লুক মার্গট এবং তার টিম ২০১৮ ২০১৯ সালে রেডিও টেলিস্কোপ থেকে দু’বার এলিয়েন সিগন্যাল ধরার চেষ্টা করেছিল। এই সমীক্ষার সময়, তারা আমাদের গ্যালাক্সিতে ৩১ টি সূর্যের মতো নক্ষত্র পেয়েছিল। এছাড়া পাওয়া যায় ২.৬৬ কোটি টেকনোসাইনচার। অধ্যয়ন করে দেখা যায় সেগুলি সরাসরি মহাকাশ থেকে আসছে। এই ২.৬৬ কোটি টেকনোসাইনচার-এর মধ্যে তাঁরা ৪৩,০২০ টি এমন সংকেত পেয়েছিলেন যেগুলি সম্পর্কে বিজ্ঞানীরা অবগত নন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।